২০১৯ বিশ্বকাপ : সামাজিক মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি অনুসরণীয় দলের র‌্যাংকিং

4

বছরের পর বছর জুড়ে খেলাটির ভক্ত- অনুরাগীরা ক্রিকেটের বিভিন্ন শৈলী দেখে আসছেন, উপভোগ করেছেন। কিছু কিছু ইভেন্ট তাদেরকে মুগ্ধ করেছে। যার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে প্রতি চার বছর পর পর আয়োজিত ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ-এর একটি।
টুর্নামেন্টে ট্রফির লড়াইয়ে অবতীর্ন হয় সর্বাধিক দল। যার দর্শক ছড়িয়ে রয়েছে বিশ্বব্যাপী। আর মাত্র কয়েকসপ্তাহ পর শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ। যে টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে নতুন করে উজ্জ্বীবিত হচ্ছে অংশগ্রহণ করতে যাওয়া দলের খেলোয়াড়রা।
এদিকে নিজ নিজ দলের সমর্থনে ক্রিকেট অনুরাগীরা এখন সক্রিয় হয়ে উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। প্রতিটি মিনিটে পছন্দের দলকে অনুসরণ করে দলের সর্বশেষ অবস্থা জেনে নিচ্ছেন তারা। এটিকে উপজিব্য করে সামাজিক মাধ্যমে অনুসরণকৃত দলগুলোর একটি ক্রম নির্ধারণ করা হয়েছে। যে ক্রমের দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। আর শীর্ষে রয়েছে ভারত।
বাংলাদেশ : সামাজিক মাধ্যমে বাংলাদেশ দলের অনুসারীরর সংখ্যা বিষ্ময়কর। বিশ্ব ক্রিকেটে টাইগারদের অনুসারী দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। বিশ্বকাপে এশিয়ার এই দেশটি যে কোন দলের বিপক্ষে বিষ্ময় উপহার দিতে সক্ষম। দলটির মধ্যে তারুণ্য ও অভিজ্ঞতার মিশেল রয়েছে। বেশ কজন ভাল পেসার রয়েছে। যারা বড় ইভেন্টে দারুণ সফলতা এনে দিতে পারেন। টুইটারে বাংলাদেশ দলের অনুসারীর সংখ্যা ২১লাখ ৯০ হাজার। ফেসবুকে ১১০ লাখ এবং ইনস্টাগ্রামে ৭লাখ ৮৬ হাজার।
ভারত : ২০১৯ বিশ্বকাপে সবচেয়ে ফেভারিটের আসনে ভারত। বিরাট কোহলির দলটি ধারাবাহিকভাবেই ভাল ক্রিকেট খেলছে। ২০১৮ সালে তারা অভাবনীয় সফলতা অর্জন করেছে। হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের মত বড় দলকে। অবশ্য সম্প্রতি নিজেদের মাটিতেই অস্ট্রেলিয়ার কাছে সিরিজ হেরেছে তারা।
তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভারত হচ্ছে সবচেয়ে বেশি অনুসরণকারী দল। টুইটারে তাদের অনুসারীর সংখ্যা ৮৫ লাখ ৩০ হাজার। ফেসবুকে ২৮০ লাখ এবং ইনস্টাগ্রামে ৮০ লাখ।
পাকিস্তান : বিশ্ব ক্রিকেটে পাকিস্তান সবচেয়ে আনপ্রেডিক্টেবল দল হিসেবে পরিচিত। ইতোমধ্যে বিশ্বকাপের জন্য পূর্ণ স্কোয়াড ঘোষণা করেছে তারা। ইংলিশ কন্ডিশনে তাদের বোলিং সামর্থ্যও উল্লেখ করার মত। তাদের যে বোলিং দক্ষতা রয়েছে তাতে এবারের বিশ্বকাপ জিতে নিলেও সেটি অপ্রত্যাশিত বলা যাবেনা সবুজ জার্সির দলের জন্য। অনুসারী দলের তালিকায় পাকিস্তানের অবস্থান তৃতীয়। টুইটারে ১০লাখ ৭০ হাজার, ফেসবুকে ৪১ লাখ এবং ইনস্টাগ্রামে ৩লাখ ৬৯ হাজার অনুসারী রয়েছে পাকিস্তানের।
দক্ষিণ আফ্রিকা : অনুসারীদের র‌্যাংকিংয়ে প্রেটিয়ারা ইংল্যান্ডের চেয়ে এগিয়ে থেকে অবস্থান করছে চর্তুস্থানে। কয়েকদিন আগে বিশ্বকাপের জন্য শক্তিশালী দল গঠন করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। বোলিং ও ব্যাটিংয়ে দারুণ সামর্থ্য রয়েছে তাদের। সামাজিক মাধ্যম টুইটারে ১০ লাখ ৭০ হাজার, ফেসবুকে ৪১ লাখ এবং ইনস্টাগ্রামে ৩লাখ ৬৯ হাজার অনুসারী রয়েছে প্রোটিয়াদের।
ইংল্যান্ড: আইসিসি ২০১৯ বিশ্বকাপের আয়োজক দলটি এবারের আসরের শিরোপার জন্য ফেভারিট। নিজেদের মাটিতে টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হচ্ছে বলে নয়, গত ১২টি মাস জুড়েই তারা ওডিআই ক্রিকেটে দুর্দান্ত পারফর্ম করেছে। টুইটারে ৬ লাখ ৩ হাজার, ফেসবুকে ৪১ লাখ এবং ইনস্টাগ্রামে ৭লাখ ৭১ হাজার অনুসারী রয়েছে ইংল্যান্ডের। যার ফলে ফলোয়ারের র‌্যাংকিংয়ে তাদের অবস্থান পঞ্চম।
এছাড়া টুইটারে ২ লাখ ৫০ হাজার, ফেসবুকে ৩৬ লাখ এবং ইনস্টাগ্রামে ৪লাখ ৪২ হাজার অনুসারী নিয়ে অস্ট্রেলিয়া ষষ্ঠ স্থানে; টুইটারে ৭লাখ ৪৯ হাজার, ফেসবুকে ২৯ লাখ ও ইনস্টাগ্রামে ১লাখ ২০ হাজার অনুসারী নিয়ে শ্রীলংকা ৭ম স্থানে; টুইটারে ৩লাখ ৪০ হাজার, ফেসবুকে ২৪ লাখ ও ইনস্টাগ্রামে ৩লাখ ৫২ হাজার অনুসারী নিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অস্টম স্থানে; টুইটারে ৩লাখ ৮৮ হাজার, ফেসবুকে ১৭ লাখ ও ইনস্টাগ্রামে ৪লাখ ২৭ হাজার অনুসারী নিয়ে নিউজিল্যান্ড নবম স্থানে এবং টুইটারে ৩লাখ ৯ হাজার, ফেসবুকে ২৩ লাখ ও ইনস্টাগ্রামে ১লাখ ২০ হাজার অনুসারী নিয়ে নিয়ে ১০ম অবস্থানে রয়েছে আফগানিস্তান।-বাসস