ই-সিগারেটেও বিষাক্ত জীবাণু!

8

জনপ্রিয় ইলেকট্রনিক সিগারেটে (ই-সিগারেট) ব্যাকটেরিয়া ও বিষাক্ত ছত্রাকের সন্ধান মিলেছে। যুক্তরাষ্ট্রে বিক্রি হওয়া ই-সিগারেটগুলোতে ওই উপাদানগুলো পাওয়া গেছে। নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। হার্ভার্ড টি এইচ চ্যান স্কুল অব পাবলিক হেলথ-এর সমীক্ষা এমনটাই বলছে।

৭৫ টি জনপ্রিয় ই-সিগারেট পণ্যের ওপর সমীক্ষা চালানো হয়। এক্ষেত্রে ক্যাত্রিজ (একক ব্যবহার) এবং ই-তরল পদার্থ (পুনর্বিবেচনার উপাদান) পরীক্ষা করে দেখা গেছে, এতে ২৭ শতাংশ অ্যান্ডোটক্সিন রয়েছে (একটি মাইক্রোবায়্যাল এজেন্ট যা গ্রাম-নেগেটিভ ব্যাকটেরিয়ায় পাওয়া যায়)।

এ ছাড়া এতে ৮১ শতাংশ গ্লুকান এর উপস্থিত পাওয়া গেছে, যা বেশিরভাগ ছত্রাকের কোষপ্রাচীরে পাওয়া যায়।

এই বিষাক্ত জীবাণু মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যগত জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে। এর কারণে অ্যাজমা, ফুসফুসের কার্যকারিতা কমে যাওয়া এবং প্রদাহের সৃষ্টি হতে পারে। ওই গবেষণার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিলেন প্রফেসর ডেভিড ক্রিশ্চিয়ানি।

তিনি জানান, বাতাস থেকে আসা গ্রাম নেগেটিভ ব্যাকটেরিয়ার এন্ডোটক্সিন এবং ছত্রাকজাত গ্লুকান দীর্ঘস্থায়ীভাবে শ্বাসযন্ত্রের ক্ষতি করতে পারে।

ডেভিড ক্রিশ্চিয়ানি বলছেন, ই-সিগারেটে প্রাপ্ত ওই বিষাক্ত উপাদানগুলো ব্যবহারকারীদের শ্বাসযন্ত্রের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ই-সিগারেট ব্যবহারের মাত্রা বেড়ে গেছে অনেকটা। বিশেষত স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এর ব্যবহারের মাত্রা বেড়ে গেছে।

এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৮ সালে ৩০ লাখেরও বেশি স্কুল শিক্ষার্থী ই-সিগারেট ব্যবহার করেছে। ২০১১ সালে যা ছিল ২ লাখ ২০ হাজার। -কালেরকন্ঠ