আজ ঐতিহাসিক ১৪ ফেব্রুয়ারী স্বৈরাচার বিরোধী দিবস

18

আকতার এস খান মাসরুরঃ আজ ঐতিহাসিক ১৪ ফেব্রুয়ারী স্বৈরাচার বিরোধী দিবস। শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় স্মরণ করি যারা সেদিন জীবন উৎসর্গ করেছেন। আরো স্মরণ করি রাজপথের সাহসী সহযোদ্ধাদের। ১৯৮৩ সালের অগ্নিঝরা এ দিনে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে সামরিক জান্তা এরশাদ ও মজিদ খানের শিক্ষা নীতির বিরুদ্ধে রাজপথে নেমে এসেছিলো ছাত্র সমাজ। মজিদ খানের শিক্ষা নীতি রুখতে সেদিন জীবন দিতে হয়েছে জয়নাল জাফর সহ আরো অনেককে। শিক্ষা ভবনের সামনে আসতেই পুলিশ হামলা করে আমাদের মিছিলে, পরে গুলি করা হত্যা করা হয় আমাদের সাথীদের। শিশু একাডেমির মধ্যে আটকে পড়াদের বেয়নেট দিয়ে খুচিয়ে হত্যা করে তারা। হত্যার প্রতিবাদে বিকেলে বটতলায় সংগ্রাম পরিষদের সভায় আবারো নারকীয় হামলা চালায় পুলিশ ও বিডিআর। কি ছিলো মজিদ খানের শিক্ষা নীতিতে? মজিদ খানের শিক্ষা নীতিতে বলা হয়, উচ্চ শিক্ষায় ভর্তির ৫০ শতাংশ হবে মেধার ভিত্তিতে বাকী ৫০ শতাংশ খরচ বহনের ভিত্তিতে ( 50 percent merit basis, 50 percent cost basis)। আরবী ভাষাকে প্রাথমিক শিক্ষায় বাধ্যতামূলক করারও প্রস্তাব করা হয়। মজিদ খানের শিক্ষা নীতি কার্যকরী হলে সাধারণ আয়ের পরিবারের সন্তানদের অনেকের পক্ষে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করা সম্ভব হতো না। সেদিনের সংগ্রামের একজন অংশগ্রহণকারী হিসেবে স্বৈরাচারী এরশাদকে যারা পুনর্বাসিত করেছেন তাদের প্রতি নিন্দা জানাচ্ছি।-লেখক: সাবেক ছাত্রনেতা এখন লন্ডন প্রবাসী।