মালিকদের তুষ্ট করতে সরকারশ্রমিকদের প্রতারিত করেছে–সিপিবি

1

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম এবং সাধারণ সম্পাদক কমরেড মো. শাহ আলম আজ এক বিবৃতিতে গার্মেন্ট শ্রমিকদের নতুন মজুরি হার প্রসঙ্গে বলেন, সরকার মালিকপক্ষকে তুষ্ট করতে শ্রমিকদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। তারা বলেন, নতুন মজুরি হার নিয়ে গার্মেন্ট শিল্পে শ্রমিকদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ অত্যন্ত ন্যায়সঙ্গত। শ্রমিকপক্ষের দাবি সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে যে নতুন মজুরি হার নির্ধারিত হয়েছে তাতে বাস্তবে শ্রমিকদের মজুরি কমিয়ে দেয়া হয়েছে।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ৫ বছরে গার্মেন্ট শিল্পের একজন অপারেটরের ৫% হারে মজুরি বৃদ্ধির ফলে বর্তমানে তার মূল মজুরি ৩৮০০ টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৪৮০১ টাকা হয়েছে। নতুন মজুরি হারের গেজেটে অপারেটরের মূল মজুরি ৪৯৩০ টাকা নির্ধারিত হয়েছে। ফলে বাস্তবে মজুরি বৃদ্ধি পেয়েছে মাত্র ৭৯ টাকা। অথচ আগামী জানুয়ারিতে অপারেটরের মজুরি ২৪১টাকা বৃদ্ধি পাওয়ার কথা। তাই বাস্তবতা হলো শ্রমিকের মজুরি কমিয়ে দেয়া হয়েছে।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, ২০১০ সালে নির্ধারিত মজুরির তুলনায় এবারের মোট মজুরিতে বেসিকের অনুপাত প্রায় ১৫ শতাংশ কম। ফলে শ্রমিকরা ওভারটাইম, উৎসব ভাতা, অবসরকালীন বা চাকুরি অবসানের ক্ষেত্রে প্রাপ্য আইনী সুবিধার ক্ষেত্রে বঞ্চিত হবে। এছাড়াও, আপারেটরদের চারটি গ্রেড রাখা এবং ‘শিক্ষানবিশ’ নামের অপ্রকাশ্য গ্রেডের মাধ্যমে মালিকপক্ষকে গ্রেড চুরির সুযোগ করে দেয়া হয়েছে।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, শ্রমিকদের মধ্যে বিদ্যমান অসন্তোষ বিক্ষোভে পরিণত হলে যদি উৎপাদন ব্যহত হয় তার দায় সরকার ও মালিকপক্ষকে নিতে হবে। তারা অবিলম্বে মজুরি পুনর্বিবেচনা করে শ্রমিকপক্ষের দাবিকৃত ১৬ হাজার টাকা নিম্নতম মজুরি এবং একই হারে সকল গ্রেডের মজুরি বৃদ্ধির দাবি জানান।