বারোবাজারী হয়ে পড়েছিলেন

35

ফজলুল বারীঃ বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ করেছিলেন কাদের সিদ্দিকী। এর প্রতিদান নিতে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর সোনার বাংলা কন্সট্রাকশন কোম্পানি খুলে বৃহত্তর ময়মনসিংহ এলাকায় অনেকগুলো সেতু নির্মানের কাজ নেন। কিন্তু এসবের টাকা তুলে নিলেও একটি সেতুও নির্মান শেষ করেননি। এসব সেতুকে কেন্দ্র করে জনদূর্ভোগ জানেন বৃহত্তর ময়মনসিংহ এলাকার লোকজন।২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এলে এসব সেতু লোপাটের মামলা এড়াতে তিনি খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠ হন। কিন্তু ঋনখেলাপী হওয়ায় আর নির্বাচন করতে পারেননি।
কাদের সিদ্দিকী কিন্তু এখনও ঋনখেলাপী। দীর্ঘদিন ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা থেকে নিয়মিত টাকা নিয়ে রাজনৈতিক দলের অফিসখরচা চালিয়েছেন আ স ম আব্দুর রব, কাদের সিদ্দিকী। সেই টাকাও বন্ধ হয়ে গেছে। শুধুমাত্র টাকার জন্যে জামায়াতে ইসলামীর প্রতিষ্ঠান দিগন্ত টিভিতে কাজ করতেন মুক্তিযোদ্ধা কাদের সিদ্দিকী। জামায়াতের লোকজন বরাবর গর্ব করে প্রচার করতো কাদের সিদ্দিকীর মতো মুক্তিযোদ্ধা তাদের আছে। এমন বারোবাজারী হয়ে পড়েছিলেন স্বঘোষিত বঙ্গবীর 🙁
দীর্ঘদিন অপেক্ষায় ছিলেন শেখ হাসিনা তাকে ডেকে তার সঙ্গে কাজ করতে বলবেন। ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করে এই অনুরোধটিই তিনি করেছিলেন 🙂 একই অপেক্ষায় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে যোগদানও তিনি একদিন দেরি করান 🙂 কিন্তু শেখ হাসিনারতো লোকের অভাব পড়েনি যে বারোবাজারী কাদের সিদ্দিকীকেও ডেকে তার সঙ্গে কাজ করতে বলবেন 🙂 ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিতে গিয়ে কাদের সিদ্দিকী বলেছেন কামাল হোসেন তাকে আইনি সহায়তা দেবেন! ঋনখেলাপী কাদের সিদ্দিকীকে কী নির্বাচন করিয়ে দেবেন কামাল হোসেন 🙂 দেখা যাবে :)-লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক।