মুখে পোড়া মবিল মেখে দিতে হবে ?

15

শেখ মামুনুর রশীদঃ ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক’ শ্লোগান দিয়ে একসময় আন্দোলন করেছি রাজপথে । সারাদেশে ছড়িয়ে পড়া ছাত্র আন্দোলনের সৈদিক ছিলাম আমিও । ছোট্ট শহর পিরোজপুরে থেকে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছি । মিছিল করেছি । শ্লোগান দিয়েছি । স্বৈরাচার হঠিয়েছি । গণতন্ত্র এনেছি- এ ছিলো নব্বুইয়ে পরম প্রাপ্তি ।

দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়া সেই আন্দোলনের সময়ও আমরা অ্যাম্বুলেন্স আটকাইনি । সংবাদপত্রের গড়ি আটকাইনি । হরতাল অবরোধ অসহযোগের মতো আন্দোলনের সময়ও মানুষের পথ চলায় আমরা বাধা হইনি । নারী এবং শিশু ছিলো নিরাপদ । আমাদের বড় অস্ত্র ছিলো মানুষের সমর্থন । বড় শক্তি ছিলো মানুষ । আশ্রয়ও ছিলো আমাদের সেই মানুষ ।

আজ রাস্তায় মানুষ মরছে । মানুষ মরবে । ঘাতকরা অনায়াসে মারবে । মারতেই থাকবে । তবুও এই ঘাতকের বিচার করা যাবেনা । বিচারের পথ রুদ্ধ করতে খান সেনারা পথে নেমেছে । নামুক, আপত্তি নেই । কিন্তু নবজাতকের কি অপরাধ ? অ্যাম্বুলেন্স আটকে দিয়ে কেড়ে নিতে হবে তার প্রাণ । মেয়েদের কি অপরাধ ? তাদের মুখে পোড়া মবিল মেখে দিতে হবে ?

আহ; গণতন্ত্র । আহ; মুক্তি । আহ; স্বাধীনতা । একাত্তরের খান সেনারা গেছে । এ যুগের খান সেনা জেকে বসেছে । প্রতিকার চাইবেন ? উপায় নাই । প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন ? উপায় নেই । দলবাজ-ধান্ধাবাজ-অন্ধ-বধির-মতলাববাজ-সুবিধাভোগী সুশিলরা এদের পক্ষে । দলতন্ত্র সবার উর্ধ্দে। কথা বলার কেউ নেই । হায় দেশ- মানবতা আজ গুমড়ে গুমড়ে কাদে ।-লেখক: একজন সিনিয়র সাংবাদিক।