মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গণতন্ত্র ও সমাজ-প্রগতির লড়াইকে এগিয়ে নেওয়ার আহবান

23

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে লেখকদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গণতন্ত্র ও সমাজপ্রগতির লড়াইকে অগ্রসর করতে লেখনীর মাধ্যমে ভূমিকা রাখতে আহবান জানিয়েছেন প্রগতি লেখক সংঘের নেতৃবৃন্দ। বাংলাদেশ প্রগতি লেখক সংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় নেতৃবৃন্দ এই প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সভায় নেতৃবৃন্দ মুক্তিযুদ্ধের চার মূলনীতি বাস্তবায়ন, গণতন্ত্র, মত প্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষায় লেখকদের সংগঠিত করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এর পাশাপাশি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ মত প্রকাশের স্বাধীনতার পরিপন্থী সকল কালাকানুন প্রত্যাহারের দাবিও জানানো হয় এই কেন্দ্রীয় সভা থেকে।

শুক্রবার পুরানা পল্টনস্থ প্রগতি সম্মেলনে প্রগতি লেখক সংঘের এই কেন্দ্রীয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রগতি লেখক সংঘের সভাপতি কবি গোলাম কিবরিয়া পিনু। সভা সঞ্চালনা করেন প্রগতি লেখক সংঘের সাধারণ সম্পাদক কবি সাখাওয়াত টিপু। সভায় বিগত সময়ে প্রগতি লেখক সংঘের কর্মকান্ড বিষয়ক সাধারণ সম্পাদকের রিপোর্ট উপস্থাপন করা হয়। প্রগতি লেখক সংঘের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রশান্ত কুমার মন্ডল সাংগঠনিক পরিকল্পনা রিপোর্ট উপস্থাপন করেন। শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন কেন্দ্রীয় সহ সাধারণ সম্পাদক অভিনু কিবরিয়া ইসলাম। বিভিনś বিভাগে প্রগতি লেখক সংঘের কর্মকান্ডের রিপোর্ট উপস্থাপন করেন প্রগতি লেখক সংঘ সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় সহসাধারণ সম্পাদক মাধব রায়, নারায়ণগঞ্জ জেলার আহবায়ক ও কেন্দ্রীয় নেতা জাকির হোসেন, লক্ষ্মীপুর জেলা কমিটির সভাপতি কেন্দ্রীয় নেতা মাইনুদ্দিন পাঠান, চুয়াডাঙ্গা জেলা কমিটি ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা কোরবান আলী মন্ডল প্রমুখ।

এছাড়াও আলোচনা করেন কেন্দ্রীয় সহসভাপতি শামসুজ্জামান হীরা, এ কে শেরাম প্রকাশনা সম্পাদক দীপংকর গৌতম, আন্তর্জাতিক সম্পাদক মীর মোশাররফ হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মাহবুবুল হক, সদস্য জাহিদ বিন মতিন, আনোয়ার কামাল প্রমুখ। সভায় সংগঠনের কার্যক্রমকে গতিশীল করতে শামসুজ্জামান হীরাকে আহবায়ক করে কর্মশালা ও সিলেবাস প্রণয়ন কমিটি, প্রশান্ত মন্ডলকে আহবায়ক করে সাংগঠনিক ও জেলা রিপোর্ট প্রণয়ন কমিটি, দীপংকর গৌতমকে আহবায়ক করে অর্থ কমিটি, আনোয়ার কামালকে আহবায়ক করে সাহিত্য সভা ও অনুষ্ঠান আয়োজন কমিটি গঠন করা হয়। সভায় আগামী বছর সংগঠনের জাতীয় সম্মেলন ও দক্ষিণ এশীয় সাহিত্য সম্মেলনের প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য কেন্দ্রীয় ও জেলা কমিটির সকল সদস্যকে প্রস্তুতি নেওয়ার আহবান জানানো হয়। এছাড়া প্রগতি লেখক সংঘের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা অচ্যুত গোস্বামীর জন্মশতবার্ষিকী পালন করারও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় এই সভা থেকে।
এছাড়া মণিপুরী সাহিত্য ক্ষেত্রে অবদানের জন্য প্রগতি লেখক সংঘের সহসভাপতি এ কে শেরাম ভারতের মণিপুর থেকে সম্মানজনক মহাকবি অঙাংহল অ্যাওয়ার্ড পাওয়ায় তাকে কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানানো হয়।