ছাত্রদল ও শিবির কর্মী দিয়ে কমিটি গঠনের অভিযোগ, মহিপুর থানা ছাত্রলীগের

24

মোয়াজ্জেম হোসেন (কলাপাড়া) পটুয়াখালীঃ দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা-কর্মীদের উপেক্ষা করে পটুয়াখালীর মহিপুর থানা ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটি প্রদানের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রলীগের বঞ্চিত নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা । রবিবার বেলা ১১টায় মৎস বন্দর আলীপুরের শেখ রাসেল সেতুর নীচে প্রায় সহাস্রাধীক ছাত্রলীগ নেতা-কর্মী এ মিছিল ও মানববন্ধনে অংশগ্রহন করে। বিক্ষোভ মিছিলে নবগঠিত কমিটির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে শ্লোগান দেয় বিক্ষুদ্ধরা । এ সময় নবগঠিত কমিটির নেতা কর্মীরা আনন্দ মিছিল বের করলে উভয় পক্ষের নেতা কর্মীদের মধ্যে মৃদূ উত্তেজনা বিরাজ করে। তবে মহিপুর থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিবেশ শান্ত হয়।
প্রতিবাদ সভায় পৌর ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম হোসেন বলেন, অবৈধ উৎকোচ গ্রহনের মাধ্যমে মহিপুর থানা ও কুয়াকাটা পৌর ছাত্রলীগের কমিটি প্রদান করা হয়েছে। কমিটিতে যাদেরকে সভাপতি সম্পাদক করা হয়েছে তারা জামাত শিবির ও ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। দলের ত্যাগী নেতা কর্মীদের কাছ থেকে কমিটি দেয়া কথা বলে টাকা নিলেও তাদেরকে কমিটিতে রাখা হয়নি। কিন্তু ছাত্রদল ও শিবিরের লোকদের কাছ থেকে বেশি পরিমান টাকা নিয়ে কমিটি দেয়া হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। মহিপুর ছাত্রলীগ নেতা ইলিয়াস খান বলেন, যাদেরকে নতুন কমিটিতে রাখা হয়েছে তাদের অনেককেই দলের ত্যাগী ও সাধারন নেতা-কর্মীরা ভালোভাবে চেনে না। এছাড়া কমিটির অধিকাংশ লোকের আত্মীয়-স্বজন জামায়ত-বিএনপি’র রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত।
নব গঠিত কমিটির মহিপুর ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মো.সাইদুর রহমান সবুজ বলেন, আমার পিতা দীর্ঘ দিন ধরে পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক হিসাবে রাজনীতি করে আসছে। তাছাড়া একই পরিবারের লোক ভিন্নভিন্ন দলের সাথে জড়িত থাকতেই পারে। তবে আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতি করছি। সভাপতি মো.শোয়াইব খান বলেন, আমার পরিবারের কেউ অন্য দলের রাজনীতির সাথে জড়িত না। পদবঞ্চিতরা মিথ্যা অভিযোগ তুলে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চাইছে।
উল্লেখ্য,গত ১৯ সেপ্টেম্বর মো.শোয়াইব খানকে সভাপতি ও সাইদুর রহমান সবুজকে সাধারন সম্পাদক করে পটুয়াখালীর মহিপুর থানা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন করেন পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো.হাসান শিকদার ও সাধারন সম্পাদক ওমর ফারুক ভূঁইয়া।