টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সাথে এস্তোনিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রীর বৈঠক

6

যুগবার্তা ডেস্কঃ ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার এর সাথে বাংলাদেশ সচিবালয়ে তার দপ্তরে এস্তোনিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মি: এসভেন মিকসের নেতৃত্বে ৮ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল সাক্ষাৎ করে।
সাক্ষাৎকালে তারা পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়াদি বিশেষ করে বাংলাদেশ ও এস্তোনিয়ার মধ্যে তথ্যযোগাযোগ প্রযু্িক্তর অগ্রগতির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিনিময় করেন।
জনাব মোস্তাফা জব্বার, বাংলাদেশ ও এস্তোনিয়ার মধ্যে বিদ্যমান চমৎকার বন্ধুপ্রতীম সম্পর্কের উল্লেখ করে বলেন, এস্তোনিয়া এবং বাংলাদেশের মধ্যে ঐতিহাসিকভাবে অনেক মিল রয়েছে। বাংলাদেশসহ এশিয়ার অধিকাংশ দেশ প্রথম তিনটি শিল্প বিপ্লব মিস করেছে। এস্তোনিয়াও এ তিনটি শিল্পবিপ্লবে শরীক হতে পারেনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ চতুর্থ শিল্পবিপ্লব বা ডিজিটাল শ্ল্পি বিপ্লবে বিশ্বে এখন নেতৃত্ব প্রদানকারী দেশের কাতারে উপনীত হয়েছে। তিনি বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তির বিকাশে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশের জিডিপির শতকরা ৯৮ভাগ একসময় কৃষিখাত থেকে আসত। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সালে বাংলাদেশে মূলত ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত হয়। ২০০৯ সাল থেকে গত সাড়ে ৯ বছরে এ খাতে অভাবনীয় অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। চলতি বছর শেষে দেশের প্রায় প্রতিটি ইউনিয়নে অপটিক্যাল ফাইভার পৌছে যাবে। বাংলাদেশ ৫৭তম স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী দেশের মর্যাদায় অধিষ্ঠিত হযেছে। ৫জির সফল পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে। ডিজিটাল ডিভাইস উৎপাদন ও রপ্তানিতে বাংলাদেশ সফলতার স্বাক্ষর রাখছে। সরকারি ব্যবস্থাপনা ডিজিটালাইজ হচ্ছে। মন্ত্রী বলেন, সরকারের বিনিয়োগ বান্ধব নীতির ফলে বাংলাদেশে বিনিয়োগ অত্যন্ত লাভ জনক। তিনি আগামী দিনগুলোতে বাংলাদেশ ও এস্তোনিয়ার মধ্যকার বন্ধুপ্রতীম সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
মি: এসভেন মিকসের, এস্তোনিয়ায় তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রগতির বিভিন্নদিক টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বারকে অবহিত করে বলেন. সাইবার নিরাপত্তাসহ ডিজিটাল অবকাঠামো উন্নয়নে এস্তোনিয়া কাজ করছে। তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেন। বাংলাদেশের এখাতের অগ্রগতির অভিজ্ঞতা অন্যদের অনুপ্রাণিত করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
এস্তোনিয়ার প্রেসিডেন্টের বিশেষ কূটনৈতিক প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রিহো ক্রব, এবং এশিয়া, আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, লেটিন আমেরিকা বিষয়ক পরিচালক ইনগ্রিদ আমের প্রতিনিধিদলে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।