অবৈধ পথে ক্ষমতা দখলের পথ রুদ্ধ করেছে বর্তমান সরকার–পরিকল্পনামন্ত্রী

6

যুগবার্তা ডেস্কঃ দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে হলে আগামী নির্বাচনে নৌকার বিজয় সু-নিশ্চিত করে আবারও আওয়ামীলীগ সরকারকে ক্ষমতায় আনতে হবে। আওয়ামীলীগ সরকার জনগণের জন্য কাজ করে। আশা করি সব রাজনৈতিক দল আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেবে, দেশে গণতান্ত্রিক ধারাকে সমুন্নত রাখতে সবাই সহায়তা করবেন, তবে কোন একটি বিশেষ দল যদি নাও আসে তাতে জনগনের এবং দেশের সার্বিক কল্যানের কোন সমস্যা হবেনা। আমরা একাধারে দুই মেয়াদ অতিক্রম করলাম, দেশের অগ্রগতিই বলে দেয় উন্নয়নবান্ধব এই সরকার দেশকে কতখানি এগিয়ে নিয়ে গিয়েছে। আমাদের নির্দিষ্ট মেয়াদ শেষেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। জনগণের প্রতি আমাদের পূর্ণ আস্থা আছে। আপনারা জানেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে দেন। সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে আমরা অবৈধ পথে ক্ষমতা দখলের পথ রুদ্ধ করেছি। ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আমরা জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচনকালীন একটি জাতীয় সরকার গঠনের প্রস্তাব দিয়েছিলাম। কারণ আমরা সবসময়ই সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পক্ষে। সংবিধানের আওতায় আমরা সবধরণের ছাড় দিতেও প্রস্তুত ছিলাম। এমনকি বিএনপি যে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিতে আগ্রহী, তাও দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা তা না করে; পেট্রোল বোমা, অগ্নিসংযোগ ও বোমা হামলা করে মানুষ হত্যায় মেতে উঠলেন। শতাধিক মানুষ হত্যা করলেন। হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পদ ধ্বংস করলেন। ২০১৫ সালে বিএনপি-জামায়াতের ৯২দিন আন্দোলনের নামে জ্বালাও-পোড়াওয়ের ২৩১ জন নিরীহ মানুষ নিহত এবং ১ হাজার ১৮০ জন আহত হন। তারা ২ হাজার ৯০৩টি গাড়ি, ১৮টি রেল গাড়ি ও ৮টি লঞ্চে আগুন দেয়। ৭০টি সরকারি অফিস ও স্থাপনা ভাঙচুর এবং ৬টি ভূমি অফিস পুড়িয়ে দিয়েছিল।তাই জনগনকে সচেতন হতে হবে নির্বাচন আর বেশী দূরে নেই, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আবারও নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে জয়ী করতে হবে। আজ শুক্রবার বিকাল ৩টায় কুমিল্লার রায়কোট দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ কতৃক আয়োজিত পথসভার প্রধান অতিথির ভাষণে মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, এফসিএ, এমপি এসব কথা বলেন।

মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যার খ্যাতি, জনপ্রিয়তা ও কর্মদক্ষতার কথা এখন শুধু দেশ নয় সারা বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। আপনারা গত কয়েকদিন দেখেছেন দেশের প্রায় সবগুলো জাতিয় দৈনিক এবং গনমাধ্যমগুলো সংবাদ প্রকাশ করেছে, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় বাংলাদেশ সরকারের উদারতার প্রশংসা করেছে জাতিসংঘ ও বিশ্বব্যাংক। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেয়া এক চিঠিতে জাতিসংঘ মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেস ও বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করে তারা বলেন, রোহিঙ্গাদের প্রতি বিশ্বসমর্থন আদায়ে আপনার ব্যক্তিগত নেতৃত্বের বিষয়টি ছিল উল্লেখ করার মত। চলতি বছরের ৩০ জুন থেকে ২ জুলাই ঢাকা ও কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনের কথা উল্লেখ করে জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্বব্যাংক গ্রুপের প্রেসিডেন্ট বলেন, এই যৌথ সফরের মধ্যদিয়ে তারা আন্তর্জাতিক মহলের সহায়তা বাড়ানোর জরুরি প্রয়োজনীয়তাসহ বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জসমূহ সম্পর্কে আরো সচেতন হয়েছেন। এ প্রেক্ষিতে বিশ্বব্যাংক গ্রুপ বাংলাদেশ সরকারের সাথে নিবিড় অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে সংকটের মধ্যমেয়াদি প্রভাব মোকাবেলায় ৪৮ কোটি মার্কিন ডলার অনুদান ভিত্তিক সহায়তা ঘোষণা করেছে। চিঠিতে তারা আরো বলেছে, আমরা ২০৩০ সালের টেকসই উন্নয়ন এজেন্ডা বাস্তবায়নে আপনার এবং আপনার সরকারের সাথে জড়িত হওয়ার সুযোগেরও প্রশংসা করছি। জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্বব্যাংক গ্রুপের প্রেসিডেন্ট উভয়ে স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উত্তরণে বাংলাদেশের চমৎকার অগ্রগতির জন্যে শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি শতকরা ৬৬ ভাগ মানুষ সমর্থন প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি ৬৪ শতাংশ নাগরিক আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন এ বিষয়টি উল্লেখ করে মাননীয় পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ওয়াশিংটনভিত্তিক ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউট (আইআরআই) পরিচালিত এক জরিপের ফলাফলে এ কথা বলা হয়। এ বছরের ১০ এপ্রিল থেকে ২১ মের মধ্যে এই জরিপ পরিচালিত হয়। এতে বলা হয়েছে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনীতি আশানুরূপভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। ৬২ শতাংশ নাগরিক মনে করেন, অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় দেশ সঠিক পথে আছে। অর্থনৈতিক উন্নয়নে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন ৬৯ শতাংশ নাগরিক। আন্তর্জাতিক গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর ইনসাইট অ্যান্ড সার্ভের এই গবেষণা প্রতিবেদন গত ৩০ আগস্ট প্রকাশ করা হয়েছে। এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা বেড়েছে। ৬৬ শতাংশ নাগরিকের কাছে জনপ্রিয় শেখ হাসিনা। এরকম একজন জনপ্রিয় এবং যোগ্যতা সম্পন্ন নেতার নেতৃত্বেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে, দেশকে নিয়ে যেতে হবে আমাদের কাংখিত স্বনের স্থানে, আশা করি আমরা তা পারব। তাই জনগনকেই সে বিষয়টি নির্ধারন করতে হবে এবং আগামী নির্বাচনে সরকারের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে।

নাঙ্গলকোট উপজেলার রায়কোটের তুলাতুলি স্কুল মাঠ প্রাঙ্গণে রায়কোট দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক আ: কালাম ভূইয়ার সভাপতিত্বে এ সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ, কৃষকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ দলীয় সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।