কিছু রাজনৈতিক দল দেশকে পীচনে নিতে উঠে পড়ে লেগেছে–মেনন

24

যুগবার্তা ডেস্কঃ “দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে তখন কিছু রাজনৈতিক দল দেশকে অবিরাম পিছনের দিকে টেনে নিয়ে যেতে উঠে পড়ে লেগে আছে।দেশের এই সময়ে সাদাকে সাদা,কালোকে কালো বলার মত সাহসী কলম সৈনিক এর খুব বেশি প্রয়োজন ছিল।কাজী সিরাজ ছিলেন এমনি এক ব্যক্তিত্ব যিনি সাদাকে সাদা,কালোকে কালো বলার সাহস রাখতেন।তিনি ছিলেন অত্যন্ত সাহসী একজন কলম সৈনিক।তার লেখনির হাত ছিল খুবই স্বচ্ছ।নীতির প্রশ্নে তিনি ছিলেন অটল। সর্বদাই প্রাঞ্জল ভাষায় তিনি তার বক্তব্য তুলে ধরতেন। তার মৃত্যুতে আমরা একজন বহুমুখী প্রতিভাবান কলম সৈনিককে হারিয়েছি।”

বুধবার বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রখ্যাত সাংবাদিক,কলামিস্ট কাজী সিরাজ এর স্মরণসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কথাগুলো বললেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি।

জনাব মেনন বলেন, দেশ এখন দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।যে স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়তে আমরা লড়াই করেছিলাম দেশের নৌকা আজ সেপথেই এগিয়ে চলেছে। কিন্তু দেশে যখন জিডিপি’র প্রবৃদ্ধির হার ৭.৬৫ ভাগ, মাথাপিছু আয় ১৭৫২ মার্কিন ডলার হয়ে গেছে এমনকি, বাংলাদেশের প্রশংসা করতে যখন খোদ পাকিস্তানের বুদ্ধিজীবীরা তাদের নব নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আগামী ১০ বছরে আমাদের পর্যায়ে আসতে পারবে কি না তা নিয়ে সন্দিহান হয়ে প্রশ্ন ছুড়ে দিচ্ছে, তখন এর মাঝেও আমাদের দেশের কিছু অস্বাদু মানুষ দুর্নীতি ও সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন করার মধ্য দিয়ে দেশকে, দেশের পরবর্তী প্রজন্মকে প্রশ্নের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। দেশে উন্নয়নের জোয়ার চলে এসেছে একথা অস্বীকার কেউই করতে পারবে না, কিন্তু এর পরেও বর্তমানে সাম্প্রদায়িকতার কালো ছায়া আমাদেরকে অন্ধকারে নিমজ্জিত করতে চাচ্ছে। কাজী সিরাজ সহ আমরা যারা এদেশের স্বাধীনতার জন্য আন্দোলন করেছি,সংগ্রাম করেছি,জেল খেটেছি; আমরা লড়াই করেছি এই প্রিয় দেশটাকে দুর্নীতিমুক্ত ও সাম্প্রদায়িকতামুক্ত স্বাধীন দেশ করার জন্যই। কাজী সিরাজ আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন কিন্তু আমাদের ভুলে গেলে চলবে না কাজী সিরাজ ছিলেন সারাজীবন অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষহীন। তিনি দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন ও সৎ থেকেছেন। দুর্নীতি ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে লড়াই করতে আজকের সাংবাদিকদের কাজী সিরাজের জীবনী থেকে বহু কিছু শেখার আছে।”

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির সাবেক মন্ত্রী মোস্তফা জামাল হায়দার,সাবেক পররাষ্ট্র সচিব সমশের মবিন চৌধুরী,ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত,প্রাক্তন প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ দিদার বখত,পরিবেশবাদী নেতা আতিকুর রহমান সালু ও কাজী সিরাজের পত্নী ও সাবেক এমপি শাহরিয়ার আকতার বুলু প্রমুখ।