ষড়যন্ত্রকারীরা সব সময় আগস্ট মাসকে বেছে নেয়–মতিয়া চৌধুরী

20

জবি প্রতিনিধি: চোরের বন্দুক আর গৃহস্থের বন্দুক এক নয়। ষড়যন্ত্রকারীরা সব সময় আগস্ট মাসকে বেছে নেয়। শোকাবহ আগস্ট মাসই তাদের কাছে ষড়যন্ত্রের অন্যতম মাস। ষড়যন্ত্র করে ১৫ আগস্টে হত্যা করা হয়েছে মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। ষড়যন্ত্র তখন ছিল এখনও আছে বলে মন্তব্য করেছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কৃষি মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী।জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৩তম শাহাদাৎবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার, সকালে বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের উদ্যোগে জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স রুমে ‘ষড়যন্ত্র যুগে যুগে’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, শেখ হাসিনা মিনতি করে ড. কামাল হোসেনকে বলেছিলেন মোস্তাক সরকারকে স্বীকৃতি না দিতে। কিন্তু তার পর ও তিনি তাকে স্বীকৃতি দিয়েছেন। আজকে তাঁর মেয়ে সারা হেসেন আলোকচিত্রী শহিদুল আলম এর পক্ষে কথা বলছে। তাই ষড়যন্ত্রকারীদের থেকে আমাদেরকে সর্বদা সর্তক থাকতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দক্ষ নেতৃত্বের কারণে আমরা অনেক ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছি। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে মানবতার মহান দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছি। অর্থনৈতিক ও সামাজিক দিক দিয়ে আজকে আমরা বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু দাঁড়িয়েছি।

বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের আহবায়ক অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, ষড়যন্ত্র যুগে যুগে হয়েছে ‘৭১-এর পরাজিত শক্তিরা দেশে বার বার ষড়যন্ত্র করেছে। ষড়যন্তকারীরা বিভিন্ন বিষয়ে সামাজিক মাধ্যমে অপপ্রচার চালিয়েছে, তাই এদেরকে চিহ্ণিত করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।হেফাজতের আন্দোলন ও কোটা বিরোধী আন্দোলনে পরাজিত শক্তিরা বার বার ষড়যন্ত্র করছে। তাই কোটা আন্দোলনে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদেরকে কেবল সরকারি চাকুরি দেওয়া উচিত দেশে ১৫ ই আগস্ট এর মতো আর কোন ঘটনা যাতে না ঘটে সেই জন্য সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

সেমিনারের বিশেষ অতিথি হিসেবে ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজ-এর সভাপতি ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন এবং পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) অধ্যাপক ড.শামসুল আলম বক্তব্য প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কলামিস্ট ড. মিল্টন বিশ্বাস এবং বক্তব্য প্রদান করেন সাংবাদিক সৌরভ জাহাঙ্গীর।

সেমিনারে আরো বক্তব্য প্রদান করেন অধ্যাপক ড. মমতাজ উদ্দীন পাটোয়ারী, বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট বিভু রঞ্জন সরকার, অধ্যাপক ড. মাহবুব আলী, স. ম শামসুল আলম, বিশিষ্ট লেখক বাকী চৌধুরী নবাব ও স্বাধীনতা ব্যাংর্কাস পরিষদের সভাপতি হামিদুল আলম।