মোংলা বন্দরের চুরি হওয়া গাড়ীটি ঢাকায় উদ্ধার করেছে র‌্যাব

133

মোংলা থেকে মোঃ নূর আলমঃ মোংলা বন্দর থেকে চুরি হওয়া দেড় কোটি টাকা মুল্যের প্রাডো গাড়ি উদ্ধার করেছে র‌্যাব। ২০১৮ মডেলের ল্যান্ড ক্রুজার গাড়ীটি বারভিডার সভাপতি মোঃ হাবিবুলøা ডন’র অটোমিউজিয়াম লিঃ আমদানী করেছিলো।

শনিবার ভোর রাতে ঢাকার বারিধারার মোবারক হোসেনের গ্যারেজ থেকে র‌্যাব-১ এর একটি চৌকশ দল এ গাড়িটি উদ্ধার করে। তবে এর সাথে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেননি তারা। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ( ট্রাফিক ) মোঃ সোহাগ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমডোর এ কে এম ফারুক হাসানের নেতৃত্বে র‌্যাব, গোয়েন্দা সংস্থা ডিজি এফ আই এবং পুলিশের এর নিরলস চেষ্টার ফলে গাড়ীটি উদ্ধার করা হয়। গাড়ী উদ্ধার পরবর্তী বাংলাদেশ রিকন্ডিশন গাড়ী আমদানীকারক ও ডিলার সমিতি বারভিডার সভাপতি মোঃ হাবিবুল্লাহ্ ডন বলেন র‌্যাব, ডিজিএফআই ও পুলিশ কর্তৃক গাড়ীটি উদ্ধার করায় তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই। কিন্ত এই দুঃসাহসিক চুরি মোংলা বন্দরের জন্য কালিমা লেপন করেছে। বন্দরের এত কঠিন সিকিউরিটির মধ্যে আস্ত গাড়ী চুরি হয়েছিলো খুবই দুঃখজনক এটি এ্যাকসেপ্ট করা যায়না। দীর্ঘ দুই বছর ধরে বন্দরের চেয়ারম্যান এবং সিকিউরিটি বিভাগকে বলা হয়েছিলো বিভিনś যন্ত্রাংশ চুরি হয়। কিন্ত তারা বারভিডার কথা কানে নেয়নি। এখন প্রমান মিললো শুধু যন্ত্রাংশ না আস্ত গাড়ী চুরি হয়। আমি মনে করি এই চুরি একটি সংকেত। এই চুরির মাধ্যমে মোংলা বন্দরের শিক্ষা নিয়ে সিকিউরিটি আরো শক্ত করবে। গাড়ী উদ্ধার এবং চুরি বিষয়ে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমডোর এ কে এম ফারুক হাসান বলেন গাড়ী উদ্ধার হয়েছে এটা বিরাট শান্তির ব্যাপার এবং সাফল্য। গাড়ী চুরির বিষয়টা আমাদের জন্য বদনাম এবং অপমানজনক ছিলো। উদ্ধার হয়েছে এখন দেখবো কোথায় কোথায় আমাদের ঘাটতি ছিলো এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। এদিকে গাড়ী চুরির মামলায় গত শুক্রবার সন্দেহ ভাজন হিসেবে আটক মোঃ আব্দুল করিমকে শনিবারে আদালতে প্রেরণ করেছে মোংলা থানা পুলিশ।

উল্লেখ্য গত ৪ জুন সোমবার বিকেলে বন্দর জেটির ৫ নং শেড থেকে ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে ল্যান্ড ক্রুজার প্রাডো ২০১৮ মডেলের এ গাড়িটি চুরি করে নিয়ে যায় একটি প্রতারক চক্র। গাড়ীটির চ্যাসিস নং প্রাডো টিআরজে ১৫০০০০৮৩৬৫৪।