গণজাগরণ মঞ্চের সংবাদ সম্মেলন

2

যুগবার্তা ডেস্কঃ কর্মসূচিতে হামলা ও বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড বন্ধের দাবিতে গণজাগরণ মঞ্চ সংবাদ সম্মেলন করেছে ।

বৃহস্পতিবার সকালে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার, মানবাধিকার কর্মী খুশী কবির, অধ্যাপক এ এন রাশেদা, উদীচী সাধারণ সম্পাদক জামশেদ আনোয়ার তপন, ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের সহ-সভাপতি আল কাদেরী জয়, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরামের সম্পাদক প্রকৌশলী শম্পা বসু, উদীচীর সহ-সাধারণ সম্পাদক সঙ্গীতা ইমাম।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি জিএম জিলানী শুভ।

সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ বলেন, গতকাল বুধবার বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের ঘোষিত সমাবেশে আসার পথে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকারকে কোনো প্রকার ওয়ারেন্ট ছাড়া আটক করে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী। ছয় ঘণ্টা আইন বহির্ভূতভাবে তাকে আটক করেখে রাত ১১টায় ছেড়ে দিলেও, যথাযথ অনুমতি থাকা সত্ত্বেও গণজাগরণ মঞ্চের বিকেলে সমাবেশটি করতে দেয়নি আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী।
একদিকে রাষ্ট্রের সংবিধান ও সুনির্দিষ্ট আইনের তোয়াক্কা না করেই মাদকবিরোধী অভিযানে একের পর এক বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ড চলছে, অন্যদিকে রাষ্ট্রীয় বাহিনী কর্তৃক সংঘটিত এই অপরাধের প্রতিবাদ যারা করছেন তাদের ওপর নেমে আসছে রাষ্ট্রীয় খড়গ। বাংলাদেশের সংবিধানের ৩৭ ধারা, অর্থাৎ নাগরিকের সমাবেশ করার অধিকার, সংবিধানের তৃতীয় ভাগের ‘মৌলিক অধিকার’ অংশ দ্বারা রক্ষা করা হয়েছে। গতকার শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের পূর্ব-ঘোষিত সমাবেশের সুনির্দিষ্ট অনুমতি ছিলো। তারপরও আইন শৃংখলা দায়িত্বে নিয়োজিত বাহিনী অস্ত্রের জোরে যে নারকীয় তান্ডব চালিয়েছে তা নজিরবিহীন।

নেতৃবৃন্দ গণজাগরণ মঞ্চের কর্মসূচিতে হামলাকারী র‌্যাব সদস্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।