‘মণি সিংহ আবার কে, তাকে চিনি না’

9

যুগবার্তা ডেস্কঃ টংক আন্দোলনের মহানায়ক, বিট্রিশবিরোধী সংগ্রামী, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সভাপতি কমরেড মণি সিংহ সম্পর্কে নেত্রকোনা জেলা প্রশাসকের ঔদ্ধত্যপূর্ণ মন্তব্য করায় তার বক্তব্য প্রত্যাহার এবং তাকে অপসারণের দাবি জানিয়েছে কমরেড মণি সিংহ মেলা উদ্যাপন কমিটি।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে মেলা উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক দূর্গাপ্রসাদ তেওয়ারী ও সদস্য সচিব অধ্যাপক এম এম আকাশ বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা প্রদান বিষয়ক তালিকার এক সভায় কমরেড মণি সিংহের অবদান অস্বীকার করে ‘মণি সিংহ আবার কে, তাকে চিনি না’ তিনি এ ধরনের ঔদ্ধত্যপূর্ণ মন্তব্য করেছেন। এ বক্তব্যের মধ্য দিয়ে প্রকৃত অর্থে মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধকালীন নেতৃত্ব এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভুলণ্ঠিত করেছে। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে কমরেড মণি সিংহের অবদান স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ আছে। ইতিমধ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এই মহান ব্যক্তিত্বের স্মৃতি রক্ষার্থে সুসং-দূর্গাপুরে ‘কমরেড মণি সিংহ স্মৃতি সংরক্ষণ ও জাদুঘর’ করার কার্যকর উদ্যোগ নিয়েছেন এবং প্রতিবছর কমরেড মণি সিংহের মৃত্যুবার্ষিকীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাণী প্রদান করেন এবং সুসং-দূর্গাপুরে ‘কমরেড মণি সিংহ মেলা’ উদ্যাপিত হয়। যেখানে দেশের বরেণ্য রাজনীতিবিদ, সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নীতি নির্ধারকরা উপস্থিত থাকেন। জাতীয় পর্যায়ে এ মেলা নেত্রকোণাসহ সারাদেশের জনগণের মিলনমেলায় পরিণত হয়।

সর্বজনস্বীকৃত যে, কমরেড মণি সিংহ মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রবাসী সরকারের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য ছিলেন। তিনি ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি-ছাত্র ইউনিয়নের কর্মীদের সমন্বয়ে বিশেষ গেরিলা বাহিনী গঠন করে মুক্তিযুদ্ধ সংগঠনে বিশেষ ভূমিকা রাখেন এবং একই সাথে আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। মুক্তিযুদ্ধে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে কমরেড মণি সিংহ স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হয়েছেন ।

নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে, প্রশাসনের ভেতর এরকম ঘাপটি মেরে থাকা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ইতিহাসবিরোধী ব্যক্তির অপসারণ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।