মন্ট্রিল কনভেনশন রেটিফিকেশন সময়ের দাবি

4

যুগবার্তা ডেস্ক: মন্ট্রিল কনভেনশন রেটিফিকেশন সময়ের এখন দাবি। বাংলাদেশ যদি মন্ট্রিল কনভেনশন রেটিফিকেশন করতো তাহলে সম্প্রতি ইউএস বাংলার দুর্ঘটনায় নিহত ও আহত প্রত্যেকে ২৫০০০ হাজার ডলার, প্রতি কেজি ব্যাগেজের জন্য ২৫ ডলার এবং কার্গো কেজি প্রতি ২৫ ডলার পেতেন। কিন্তু বাংলাদেশ এখনও মন্ট্রিল কনভেনশন রেটিফিকেশন না করায় বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ও আহত যাত্রীরা ক্ষতিপূরণ পাবে ওয়ারশ কনভেনশন অনুযায়ী যা অনেক কম।

আইএটিএর (ইন্টারন্যাশনাল এয়ার ট্রান্সপোর্ট এসোসিয়েশন) এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট ঈড়হৎধফ ঈখওঋঋঙজউ আজ সকালে সচিবালয়ে বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামালের সাথে সাক্ষাৎকালে এ কথা বলেন।

সারা বিশ্বে এভিয়েশন খাতের সেফটি ও সিকিউরিটি (ডেথ, ইনজুরি, ডিলে, ডেমেজ, লস) ক্ষেত্রে আইকাও এর (্ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন) এর মন্ট্রিল কনভেনশন ৯৯ কার্যকর অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। আইকাও সদস্য রাষ্ট্রসমূহকে এ কনভেনশন রেটিফেকশনে উদ্বুদ্ধ করতে কাজ করছে আইএটিএ।

মন্ত্রী জানান বাংলাদেশ ইতোমধ্যে মন্ট্রিল কনভেনশনে স্বার করেছে। এর রেটিফিকেশন প্রক্রিয়া আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিং এর জন্য প্রেরণ করা হয়েছে।
তিনি এয়ার সেফটি ও সিকিউরিটির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরে বলেন সম্প্রতি আইকাওএর ইন্সপেকশনে বাংলাদেশ ৭৭.৪৭ নম্বর অর্জন করেছে যা অঞ্চলে সর্বোচ্ছ। তিনি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের ক্যাটাগরি-১ উন্নীত হওয়ার ক্ষেত্রে আইএটিএর সহযোগিতা কামনা করেন।
এ সময় আএটিএ’র রিজিওযনাল ম্যানেজার আজহার আজহারি, এভিয়েশন সলিউশন ম্যানেজার পারভেজ এন ইব্রাহিম উপস্থিত ছিলেন।