কাকরাইল মসজিদ ঘিরে আতঙ্ক, আবারো সংঘর্ষের আশঙ্কা

4

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশের তাবলিগের মারকাজ কাকরাইল মসজিদ ঘিরে আতঙ্ক ও থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। তাবলিগে আধিপত্য ও দিল্লির মুরব্বি বিতর্কিত মাওলানা সা’দ কান্ধলভিকে নিয়ে শনিবার দুই গ্রুপের সংঘর্ষের পর কাকরাইল মারকাজে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে জামাতের আগমন কমে গেছে। দূর দূরান্ত থেকে আসা ওলামা, তলাবা, মুবাল্লিগদের দেখা মেলেনি। যাদের চিল্লা শেষ হয়েছে তারাও রিপোর্ট করতে আসেনি এই মসজিদে। সবাই সহিংসতার আতঙ্কে রয়েছে। বাংলাদেশের দুই মুরব্বি ও শুরা সদস্য মাওলানা যুবায়ের আহমদ ও প্রকৌশলী সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামের আধিপত্য নিয়ে পুরো তাবলিগ জামাত প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ায় সারাদেশের সাথিদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এদিকে প্রশাসনের নির্দেশে তাবলিগের হেফাজাতে ইসলাম গ্রুপের প্রধান মাওলানা যুবায়ের আহমদ ও মাওলানা সা’দ গ্রুপের প্রধান সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম রবিবার কাকরাইল মারকাজে আসেননি। মাওলানা যুবায়ের আহমদ রাজধানীর খিলগাঁওয়ের বাসায় এবং সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম ধানমণ্ডী ৭-এর বাসায় ছিলেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন মুকিম [মারকাজে অবস্থানকারী] জানান, কাকরাইল মসজিদে স্বাভাবিক কাজ কর্ম চললেও সবার মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে, আগের মতো বাইরের কেউ এসে ঝামেলা করে কিনা তা নিয়ে তটস্থ।। মাওলানা যুবায়ের আহমদ ও সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম মারকাজে ফিরলে আবারও সংঘর্ষ হতে পারে। তাদের দুই গ্রুপের লোকজন এখনও মারমুখী অবস্থায় রয়েছে। এবার মারামারি হলে বড় রক্তারক্তির মতো ঘটনা ঘটতে পারে।
তাবলিগের সাধারণ সাথিরা দাবি করেছেন, মাওলানা যুবায়ের আহমদ ও সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামকে তাবলিগের দায়িত্ব থেকে অবিলম্বে অপসারণ করে প্রকৃত আলেমদের ভেতর থেকে কাউকে দায়িত্ব প্রদান করা। এই দুই গ্রুপ এ পর্যন্ত চারদফা সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে। কাকরাইল মসজিদে রক্তারক্তি হয়েছে। একজনকে হত্যা করা হয়েছে এমন অভিযোগও রয়েছে।
মাওলানা যুবায়ের আহমদের ছেলে মাওলানা হানযালা বলেন, আব্বাজানের একটাই বক্তব্য, আমি ফেতনা ও ঝগড়ার তাবলিগ করবো না। যতদিন পর্যন্ত তাবলিগের এ অস্থিরতা না কাটবে ততদিন কাকরাইলেও যাবো না। বাসার পাশে মাদরাসা আছে সেখানে পড়াবো। মহল্লার সাথীদের সাথে দাওয়াতের কাজ করবো। অপরদিকে সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নফল নামাজ পড়ছি, কুরআন তেলাওয়াত করছি, সাথীদের সঙ্গে যোগাযোগ হচ্ছে। সাথীরাও সাক্ষাতে বা ফোনে যোগাযাগ রক্ষা করছেন। হেফাজাত সমর্থকদের দাবি প্রকৌশলী সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম কোন আলেম না হয়েও জোর করে কাকরাইল মারকাজ দখল করে আছেন। তার গ্রুপে কোন প্রসিদ্ধ আলেম নেই। সবাই জেনারেল শিক্ষিত। অপরদিকে ওয়াসিফুল গ্রুপের দাবি হেফাজাতে ইসলাম তাবলিগকে কুক্ষিগত করতে চায়। তারা রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলে লিপ্ত।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অপেক্ষায় তাবলিগ
কাকরাইল মসজিদে ফের দুই গ্রুপের মারামারির পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের নির্দেশে দুই গ্রুপের শীর্ষ মুরব্বিরা ১মে পর্যন্ত কাকরাইল মসজিদে ঢুকতে পারবেন না। ইতিপূর্বে সংঘাতের পর তাদের বিরোধ মেটাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল ভূমিকা রেখেছিলেন। এবার তিনি দেশে না থাকায় তার জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে দুই গ্রুপের সদস্যদের।
সূত্র জানায়, কাকরাইল মারকাজে শুরা সদস্য রয়েছেন ১১ জন। এরমধ্যে দিল্লির মুরব্বি মাওলানা সা’দ কান্ধলভির পক্ষে রয়েছেন সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, মোজাম্মেল হক, খান সাহাবুদ্দিন নাসিম, মোশাররফ হোসেন, ইউনুস শিকদার, শেখ নুর মোহাম্মদ। অন্যদিকে, মাওলানা সা’দ কান্ধলভি বিরোধী অবস্থানে রয়েছেন মাওলানা যোবায়ের আহমেদ, মাওলানা রবিউল হক, মাওলানা মোহাম্মদ হোসেন, মাওলানা ওমর ফারুক। একজন আছেন নিরপেক্ষ। তিনি হলেন মাওলানা মোহাম্মদ ফারুক।
সূত্র জানায়, গত বছর নভেম্বর মাসে সংকট নিরসনে পাঁচজন কওমি আলেমকে তাবলিগ জামাতের পরামর্শক ও উপদেষ্টা হিসেবে মনোনীত করা হয়। তারা হলেন- কওমি মাদ্রাসার সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রকারী সংস্থা আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের কো-চেয়ারম্যান মাওলানা আশরাফ আলী, জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া মাদ্রাসার মুহতামিম ও গুলশান সেন্ট্রাল (আজাদ) মসজিদের খতিব মাহমুদুল হাসান, কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকের মহাসচিব মাওলানা আবদুল কুদ্দুছ, শোলাকিয়া ঈদগাহের খতিব ফরীদ উদ্দিন মাসউদের প্রতিনিধি মুফতি মুহাম্মদ আলী, মারকাজুদ দাওয়াহ বাংলাদেশের আমিনুত তালিম মাওলানা মুহাম্মাদ আব্দুল মালেক। কওমি আলেমদের পাঁচ সদস্যের এই উপদেষ্টা কমিটিকে প্রথমে মেনে নিলেও পরবর্তীতে তাদের প্রত্যাখ্যান করেন প্রকৌশলী সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামের অনুসারীরা। এরপর বিরোধ জটিল হয়। গত শনিবার সংঘর্ষের পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে দু’পক্ষকে নিয়ে কাকরাইল মসজিদে বৈঠকে বসেন রমনা জোনের পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় ১মে পর্যন্ত সৈয়দ ওয়াসিফুল ও তার গ্রুপের সক্রিয় সদস্য আব্দুল্লাহ মনছুর ও দৈনিক ভোরের পাতার মালিক ড. এরতেজা হাসান এবং মাওলানা জুবায়ের ও তার গ্রুপের সদস্য মাহফুজ হান্নান ও ড. আজগর কাকরাইলের বাইরে থাকবেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশে ফেরার পর বৈঠকে বসে সংকটের সমাধান করা হবে।
তাবলিগের একজন মুরব্বী বলেন, বিবাদমান দুই গ্রুপের প্রধান মাওলানা যুবায়ের আহমদ এবং সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলামকে তাবলিগের নেতৃত্ব থেকে অপসারণ না করা হলে খুনোখুনির ঘটনা ঘটতে পারে। তারা দীর্ঘকাল ধরে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। এখন স্বেচ্ছাচার হয়ে গেছে। কাকরাইল মারকাজকে বাসাবাড়ি বানিয়েছে। তাবলিগের মালিক মনে করেন নিজেদের।
তিনি বলেন, দু’পক্ষ গত এক বছরে অন্তত চারবার সংঘর্ষে জড়িয়েছে। বিষয়টি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল তার মন্ত্রণালয়ে কয়েকবার বৈঠকও করেছেন। এরপরও দু’পক্ষকে সমঝোতায় আনা সম্ভব হয়নি। এর আগেও তাবলিগ জামাতের বিরোধ নিয়ে এই দু’পক্ষের মধ্যে মামলা-পাল্টা মামলা হয়েছে। এর একমাত্র সমাধান দুই গ্রুপের শীর্ষ নেতাদের বুঝিয়ে থামানো।-ইত্তেফাক