সুন্দরবনের পশুর নদীতে সাতশ মেঃ টঃ কয়লা নিয়ে লাইটার জাহাজ ডুবে গেছে

6

মোংলা থেকে মোঃ নূর আলমঃ সুন্দরবনের হারবাড়িয়া এলাকায় পশুর নদীতে ৭৭৫ মেট্রিকটন কয়লা নিয়ে এমভি বিলাস নামে একটি লাইটার ভ্যাসেল ডুবে গেছে। শনিবার দিনগত রাত তিনটায় মোংলা বন্দর থেকে প্রায় ৬০ নটিক্যাল মাইল দূরে হারবাড়িয়া ৬ নাম্বার এ্যাংকরে ডুবোচরে ধাক্কা লেগে তলা ফেটে ৭৭৫ মেট্রিকটন কয়লা নিয়ে ওই লাইটার ভ্যাসেলটি ডুবে যায়। ডুবে যাওয়া লাইটার ভ্যাসেলটিকে দেখা যাচ্ছে। ভ্যাসেলে থাকা নয় নাবিক সুস্থ আছেন। তবে এতে হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায়নি।

কয়লা আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান সাহারা এন্টারপ্রাইজের ব্যবস্থাপক (অপারেশন) মো. লালন হাওলাদার বলেন, গত ১৩ এপ্রিল লাইবেরিয়ার পতাকাবাহী এমভি অবজারভেটর নামের একটি জাহাজ সাড়ে ২৪ হাজার মেট্রিকটন কয়লা নিয়ে মোংলা বন্দরের হারবাড়িয়ার ৬ নাম্বার এ্যাংকরে নোঙ্গর করে। শনিবার ১৪ এপ্রিল সকাল থেকে দুপুর বারোটা পর্যন্ত এক হাজার মেট্রিকটন ধারণক্ষমতার লাইটার ভ্যাসেল এমভি বিলাস ৭৭৫ মেট্রিকটন কয়লা ওই জাহাজ থেকে খালাস করে ঢাকার মীরপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। হারবাড়িয়ার ৬ নাম্বার এ্যাংকরে লাইটার ভ্যাসেলটি পৌছে ডুবো চরে ধাক্কা লাগে। লাইটার ভ্যাসেলের মাস্টার ডুবোচর থেকে উদ্ধার পাওয়ার জন্য মোংলা বন্দরের সাহায্য চায়। বন্দর কর্তৃপক্ষের উদ্ধারযানটি ঘটনাস্থলে পৌছেও তা রক্ষা করতে পারেনি। প্রবল জোয়ারের চাপে কয়লা বোঝাই কার্গোটি তলা ফেটে ডুবে গেছে।

তিনি আরও বলেন, এই লাইটার ভ্যাসেলে যে কয়লা রয়েছে তা কোথাও ভেসে যায়নি। ভ্যাসেলেই রয়েছে। সুতারাং এতে পরিবেশের কোন ক্ষতি আশংকাও নেই বলে দাবি করে ওই আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষেট হারবার মাস্টার মোহম্মদ ওয়ালিউল্লাহ বলেন, কয়লাবাহী লাইটার ভ্যাসেল এমভি বিলাস আমাদের সাহায্য চাইলে আমাদের উদ্ধার যান এমভি শিপসা সেখানে পৌছে তাদের উদ্ধারের চেষ্টা করে। রাত তিনটার দিকে জোয়ারের পানির তোড়ে কয়লা বোঝাই লাইটার ভ্যাসেলটি কাত হয়ে যুবে যায়। তবে এতে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। লাইটার ভ্যাসেলটিকে দেখা যাচ্ছে। কিভাবে জাহাজটি উদ্ধার করা তার চেষ্টা চলছে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী অন্য একটি কার্গো ভ্যাসেলের নাবিক চুনś মিয়া বলেন এমভি অবজারভেটর মাদার ভ্যাসেল থেকে কয়লা আনলোড করে কিছু দুর গেলে ডুবো চরে ধাক্কা লেগে তলা ফেটে ডুবে যায় এমভি বিলাস কার্গো ভ্যাসেলটি। তিনি জানান ভ্যাসেলে থাকা ৯ নাবিককে সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। পশুর নদীতে কয়লা ডুবির বিষয়ে জানতে চাইলে ্ওয়াটারকিপার্স বাংলাদেশের সমন্বয়কারী শরিফ জামিল বলেন বিষাক্ত কয়লার জাহাজ ডুবির ফলে জলজ প্রাণীর প্রজননের ক্ষতি হবে। সুন্দরবনের জীব-বৈচিত্র’র উপর এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

ডুবন্ত ভ্যাসেলের উদ্ধারের বিষয় জানতে চাইলে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমডোর কে এম ফারুক হাসান বলেন উদ্ধারে ২০/২৫ দিন সময় লাগবে। কার্গো ডুবিতে কোন দূষণ ঘটবে না।