পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সমাজের মূল স্রোতধারায় তুলে আনতে হবে–মেনন

14

রংপুর অফিসঃ “সমাজসেবা একটি সাংবিধানিক দায়িত্ব। এখানে সমাজের সাধারণ ক্ষেটে খাওয়া মানুষের ভাগ্যান্নায়নে কাজ করতে হবে। দলিত,হিজড়া,বেদে,বিধবাসহ সকল অসহায় মানুষেরা আমাদেরই আত্মীয়,ভাই-বোন।তাদের পিছনে ফেলে রেখে দেশ এগিয়ে যেতে পারবে না। সমাজসেবা অফিসে চাকরি করা মানে শুধু অফিস ওয়ার্ক করা না।সমাজসেবা অফিসে কাজ করতে হলে সমাজের মানুষের সাথে মিশতে হবে।অসহায় মানুষের কথা শুনতে হবে। যাদের জন্য আপনাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে তাদের কথা যদি আপনারা না শোনেন তাহলে তা কোন ভাবেই মেনে নেয়া হবে না”।

শুক্রবার সকালে রংপুর সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে জেলার সমাজসেবা কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব কথা বলেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি।

সভায় রংপুর,গাইবান্ধা থেকে আগত জেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাগণ তাদের নিজ নিজ জেলার কার্যক্রম উপস্থাপন করেন।

শেখ রাসেল দু:স্থ শিশু প্রশিক্ষণ ও পুণর্বাসন কেন্দ্রের উপ প্রকল্প পরিচালক,হাসপাতাল সমাজসেবা কর্মকর্তাগণও তাদের কাজের বর্তমান চিত্র তুলে ধরেন।
সভায় লালমনিরহাট সরকারি শিশু পরিবার থেকে আগত কর্মকর্তা সেখানকার এতিম পথশিশুদের বর্তমান চিত্র তুলে ধরেন। সভায় কর্মকর্তাগণ মন্ত্রীর কাছে বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরলে মন্ত্রী তার সমাধানে দ্রুত ব্যাবস্থা নেবেন বলে আশ্বাস দিয়ে সমাজসেবা কর্মকর্তাদের তাদের নিজ নিজ কাজে আরো দায়িত্বশীল হবার পরামর্শ দেন।

সভায় সমাজকল্যাণমন্ত্রী সমাজসেবা কর্মকর্তাদের দ্রুত অধিক কাজ সম্পন্ন করার তাগিদ দিয়ে বলেন-” বর্তমান সরকারের হাতে অবশিষ্ট উন্নয়ন কাজ শেষ করার জন্য খুব বেশি সময় নাই।আগামী জুনের মধ্যেই অবশিষ্ট উন্নয়ন কাজগুলো দৃশ্যমান হতে হবে।”