কোটা সংস্কার: ফের আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা

9

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ কোটা সংস্কারের দাবিতে ফের মাঠে আন্দোলনকারীরা।সোমবার সরকারের প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক করে চলমান আন্দোলন আগামী ৭ মে পর্যন্ত স্থগিত করেছিল আন্দোলনকারীরা। পরে সরকারের দায়িত্বশীল বিভিন্ন মহল থেকে অসংহতি মুলক বক্তব্য আসলে একমাত্র
প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা ছাড়া আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়। এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সুফিয়া কামাল হলে আন্দোলনকারী এক ছাত্রীকে মারধর ও পায়ের রগ কেটে দেওয়ার অভিযোগে হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতিকে ইফফত জাহান এশাকে বহিস্কার করা হয়েছে।

কোটা সংস্কারের দাবিতে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ধারাবাহিক আন্দোলন করে আসছে। গত ৮ এপ্রিল পদযাত্রা করে শাহবাগে আসলে আন্দোলনকারীদের উপর পুলিশ প্রথমে বাধা প্রধান পরে লাঠি চার্জ ও টিয়ার শেল ছুড়ে। আন্দোলনকারীদের উপর ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা দফায় দফায় হামলা চালায়। এতে বিক্ষোভ সারাদেশে ছড়িয়ে পরে কোথাও কোথাও সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। ভাংচুড় হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্যের বাস ভবন।

এমন পিরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কারে যাচাই বাচাই করার নির্দেশ দেন। আন্দোলনকারীদের সাথে আলোচনার করাও দায়িত্ব দেন।

৯ এপ্রিল সোমবার বিকেলে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে সরকারের একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সচিবালয়ে আন্দোলনকারী ২০ সদস্যের সাথে প্রায় পৌনে ২ ঘণ্টা বৈঠক করেন। সেখান থেকে বিভিন্ন দাবি দাওয়া মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিলে আগামী ৭ মে পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা আন্দোলনের পক্ষে নেতৃত্ব।

বৈঠকের পর সাংবদিকদের উভয় পক্ষ কথাও বলেন। বৈঠকের পর বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, তাঁরা সরকারের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ৭ মে পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করছেন।

বৈঠকের পর সরকারের পক্ষের অবস্থান নিয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
আন্দোলনকারী একটি অংশ এত সময় না নিয়ে দাবি মেনে নেওয়া দাবি করে স্থগিতের বিপক্ষে মত দেন। একই ভাবে সরকারে দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা আন্দোলন নিয়ে স্ববিরোধী বক্তব্য দিলে আবার ক্ষুব্ধ হন আন্দোলনকারীরা। সরকারি দলের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের হুমকি, হামলা, ভয়ভীতি আরও সংগঠিত করে আন্দোলনে। স্থগিত সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে বিক্ষোভ অব্যাহত ঘোষণা দেয় আন্দোলনের যুগ্ম আহবায়ক রাশেদ খান।
সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আন্দোলনকারীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়া বিক্ষোভ করছেন।এদিকে এক ছাত্রীর উপর হামলা ও পায়ের রগ কেটে দেওয়ায় সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রলীগের সভাপতি ইফফাত জাহান এশা বিশ্ববিদ্যালয় ও ছাত্রলীগ থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।