জবিয়ান নেতাই ছিল ভর্তি জালিয়াতির কাজে!

335

অন্তু আহমেদ (জবি) : জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতিতে সেই ছাত্রলীগ নেতার নাম উঠে এসেছে। প্রক্সি বা বডি চেঞ্জ করে ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া দুই শিক্ষার্থীকে আটক করা হলে তারা ভর্তি জালিয়াতিতে জবি শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আকিব বিন বারির সম্পৃক্ততার তথ্য জানান। এর আগে ২০১৫ সালে ৩১ অক্টোবর ঢাকা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির অভিযোগে যে ১৭ জনকে আটক করা হয়েছিল তার মধ্যে আকিব বিন বারিও ছিলেন।রোববার বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অফিসে আটক দুই শিক্ষার্থী সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের আরিফ আলমাস আকাশ ও সমাজকর্ম বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল নোমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তি হওয়ার কথা স্বীকার করেন তারা।

গত ৪ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার দপ্তরে ভূমি আইন ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী এলিন শেখের ভর্তির সময় জমা দেওয়া ছবির সঙ্গে ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্রের মিল না পাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে প্রক্সি দিয়ে ভর্তির অভিযোগ স্বীকার করলে তাকে থানায় সোপর্দ করা হয়।

পরে ৬ মার্চ একই প্রক্রিয়ায় আরও তিন শিক্ষার্থী জালিয়াতির ঘটনা স্বীকার করেন। এরই অংশ হিসেবে গত রোববার রেজিস্ট্রার দপ্তরে অন্য শিক্ষার্থীদের তথ্য যাচাই-বাছাইয়ের সময় আরিফ আলমাস আকাশ নামে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের এই শিক্ষার্থীর ছবির গরমিল পাওয়া যায়। পরে আকাশকে প্রক্টর অফিসে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি সমাজকর্ম বিভাগের তৃতীয় বিভাগের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল নোমানের মাধ্যমে তিন লাখ টাকার বিনিময়ে ভর্তি হওয়ার তথ্য জানান।আটক আবদুল্লাহ আল নোমান জানান, তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বড় ভাই সাইফুল ইসলাম এবং আকিব বিন বারির কাছে তিন লাখ দিয়ে আকাশকে জবিতে ভর্তি করান।