৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্পে পাকিস্তান ও আফগানে নিহত ১০০

যুগবার্তা ডেস্কঃ ৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো মধ্য-দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, কাজাখস্তান, উজবেকিস্তান ও তাজিকিস্তান। সোমবার বিকেলে আফগানিস্তানের হিন্দুকুশ পর্বতে এই ভূমিকম্পে ওই ছয় দেশের বিস্তৃত এলাকাজুড়ে কম্পন অনুভূত হয়। এতে পাকিস্তানে অন্তত ৭৬ জন এবং আফগানিস্তানে ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে, আহত হয়েছে বহু মানুষ। এছাড়াও এই ভূমিকম্পের প্রভাবছিল ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে, ছিল বাংলাদেশেও। কিন্তু সেখান থেকে এখন পর্যন্ত কোন মৃত্যুর খবর মেলেনি।
যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ দফতরের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ সময় সোমবার বিকাল তিনটা ৯ মিনিটে এই ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৭.৫। এর উত্পত্তিস্থল ছিল আফগানিস্থানের জারম থেকে ৪৮ কিলোমিটার দক্ষিণ দক্ষিণ পশ্চিমে, ভূপৃষ্ঠের ২১২ কিলোমিটার গভীরে।
পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম জানায়, ভূমিকম্পে দেশটিজুড়ে ৭৬ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে তিন শতাধিক লোক। এসব হতাহতের ঘটনা ঘটেছে ছাদ ও ভবন ধসের কারণে। এছাড়া, ভূমিকম্প অনুভূত হওয়ার পর ছাদ থেকে লাফ দিতে গিয়েও অনেকের জখম হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বেশি ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটেছে সোয়াত অঞ্চলে।
আফগানিস্তানের জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দপ্তরের প্রাদেশিক প্রধান আবদুল রাজ্জাক জিনদার বরাত দিয়ে রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ভূমিকম্পের মধ্যে দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় তালোকান শহরের একটি স্কুল থেকে হুড়োহুড়ি করে বের হতে গিয়ে পদদলিত হয়ে মৃত্যু হয় ১২ ছাত্রীর।
আর পূর্বাঞ্চলীয় নাগরহার প্রদেশে সাতজন, নূরিস্তানে দুজন এবং কুনার প্রদেশে তিনজন নিহত এবং শতাধিক আহত হয়েছেন বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়।
ভূমিকম্পে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল ভয়ানকভাবে কেঁপে উঠলেও সেখানে তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।
পাকিস্তানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় আফগান সীমান্তবর্তী জেলাগুলো।
উত্তরের দুর্গম এলাকায় ২৮ জন এবং উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের গিলগিট-বালতিস্তানে আরও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে বিবিসির খবরে জানানো হয়েছে।
চিত্রল প্রদেশের পুলিশ প্রধান শাহ জাহানকে উদ্ধৃত করে রয়টার্স লিখেছে, সেখানে অন্তত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। টেলিফোন যোগাযোগ বিপর্যস্ত হয়ে পড়ায় যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আমরা আশঙ্কা করছি।
আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম জানায়, ভূমিকম্পের পর ভারতের কাশ্মীর, পাকিস্তানের লাহোর ও আফগানিস্তানের কাবুল এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় মোবাইল-ফোন ও বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। তৎক্ষণাৎ বন্ধ হয়ে যায় দিল্লির মেট্রোরেল সার্ভিস। আতঙ্কে কর্মস্থল ছেড়ে রাস্তায় বেরিয়ে আসে ভারতের দিল্লিসহ উত্তরাঞ্চলীয় বিভিন্ন শহর, লাহোর, কাবুলসহ বিভিন্ন এলাকার লোকজন। এছাড়া, ভূমিকম্পে ভারতের এনডিটিভির নিউজরুমও কেঁপে ওঠে বলে সে মুহূর্তের একটি ভিডিও প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমটি।