সেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আর নেই: ড. কামাল

ডেস্ক রিপোর্ট: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গড়েছিলেন জোট গড়েছিলেন বিশিষ্ট আইনজীবী ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন।সেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এখন আর নেই বলে জানিয়েছেন জোটটির এই শীর্ষ নেতা।

তবে এই জোটের পুনরায় সক্রিয় হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে উল্লেখ করে এ বিষয়ে পরে জানানোর কথা বলেছেন ড. কামাল।

শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা জানান।

সংসদ নির্বাচনকে টার্গেট করে গড়া এই জোট দীর্ঘদিন ধরে একেবারেই নিষ্ক্রিয়। জোটের অন্যতম বিএনপি কিংবা শরিক দলগুলোর কোনো নেতারা এই জোট নিয়ে স্পষ্ট কোনো বক্তব্য দিচ্ছেন না।

আজ (শনিবার) গণফোরামের সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকরা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অস্তিত্ব রয়েছে কিনা জানতে চাইলে ড. কামাল জবাবে বলেন, ‘এই মুহূর্তে এটার কোনো অস্তিত্ব নেই। কিন্তু একটি সম্ভাবনা তো আছে। আবার পুনঃজাগরণের সম্ভাবনা আছে। নতুন করে ঐক্যবদ্ধ কিছু একটা করার অবশ্যই সম্ভাবনা আছে।’

সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন জানান, গণফোরামের যে কাউন্সিল আগামী ৪ ডিসেম্বর হওয়ার কথা ছিল- তা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের দলের ৪ ডিসেম্বর যে সম্মেলন হওয়ার কথা ছিল, সেটা জানুয়ারির শেষে হবে। আমরা সম্মেলন মুলতবি করছি।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘নির্দলীয় সরকারের অধীনে আগামী সংসদ নির্বাচন আমরা দাবি করি। কেননা আমরা দেখেছি যে দলীয় নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হয় না।’

নির্দলীয় সরকার তো এখন সংবিধানে নেই- এমন প্রশ্নের জবাবে সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা ড. কামাল হোসেন বলেন, আমরা দাবি তুললে তারপর এটা আলোচনার মধ্যে আদায় করা যায়। প্রয়োজনে সংবিধান সংশোধন করা হবে। জনগণের দাবি উঠলে এটা হবে।

সরকার দাবি না মানলে কী করবেন- এমন প্রশ্নের জবাবে ড. কামাল বলেন, দেশে সঙ্কট সৃষ্টি হবে। তারপর আন্দোলন হবে। দেশের মানুষ যদি এটা নিয়ে বিক্ষুব্ধ হয়, তাহলে জোরদার আন্দোলন হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে গড়ে তোলা হয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নামে জোট। ড. কামাল হোসেনকে শীর্ষ নেতা করে গড়া জোটে বিএনপি ও গণফোরাম, জেএসডি, কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগ এবং নাগরিক ঐক্য যোগ দেয়। জোট থেকে গণফোরামের একজন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বিএনপি থেকে হন সাতজন। ভোটের পর কিছু দিন সক্রিয় থাকলেও ধীরে ধীরে নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে ঐক্যফ্রন্ট। দল নিয়ে জোট ছেড়ে বেরিয়ে যান বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী।-যুগান্তর