সাহিত্য সম্পদকে বাড়াতে তরুণ লেখক ছাড়া বিকল্প হতে পারে না-মেনন

“বাংলাদেশ তরুণ লেখক পরিষদ” কর্তৃক আয়োজিত ২৬ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অস্থায়ীভাবে নির্মিত মোড়ক উন্মোচন মঞ্চে “লেখকদের আত্মপ্রকাশ ও মোড়ক উন্মোচন” অনুষ্ঠান সংগঠনের সভাপতি আশিকুল কায়েসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব রাশেদ খান মেনন। আরও উপস্থিত ছিলেন শেখ বোরহানুদ্দিন কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক বিথি রানী ঘোষ, মনো বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক বাদল চন্দ্র অপু ও প্রতিবন্ধি জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটার ও পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির বিকল্প সদস্য ইদ্রিস আলী। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বাংলাদেশ তরুণ লেখক পরিষদের সদস্য বাচ্চু মিয়া।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, সাহিত্য সংস্কৃতি এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে তরুণদের একটা ভূমিকা থাকে বাংলাদেশ তরুণ লেখক পরিষদ আগামীদিনে আরও ভালোকিছু প্রকাশ করে পাঠকদের হাতে তুলে দেবে। তিনি আরও বলেন, আগামী প্রজন্মকে সামনের দিকে তুলে ধরতে ও দেশের সাহিত্য সম্পদকে বাড়িয়ে দিতে বাংলাদেশ তরুণ লেখক পরিষদ ছাড়া অন্যকোন বিকল্প কিছু হতে পারে না। তরুণ লেখক পরিষদ মানুষকে উৎসাহদানের পাশাপাশি তরুণ লেখকদের বই প্রকাশের দায়িত্ব নিয়েছে নি:সন্দেহে এটা একটা বিরাট অর্জন।
সভাপতি আশিকুল কায়েস তার তার বক্তব্যে বলেন, আমরা গুরুজনদের নিকট থেকে যে উৎসাহ উদ্দীপনা পেলাম, এই সূত্র ধরে পরিষদ দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য সবসময় ভালো কিছু করতে পারবে বলে আমি আশা করি। আমরা হয়তো একুশ বছর বয়সী সুকান্তর মত গ্রেনেড না হতে পারি মিছাইল হতেতো কোন বাধা নেই, সেটাই আমাদের জন্যই উপযুক্ত। তারুণ্য জয় গান এই তরুণ লেখকরাই গাইবে। তিনি আরও বলেন, আগামী একুশে গ্রন্থমেলায় পাঠকদের হাতে তরুণ লেখক পরিষদের মাধ্যমে আরও ভালো কিছু উপহার দিতে পারবো বলে আশা করি।
যেসকল বই মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে লেখক লেখিকার আত্মপ্রকাশ ঘটেছে তারা হলেনÑ
উম্মে হানি মেঘলা রচিত গল্পগ্রন্থ “আলো আঁধারের মেয়ে” এসএম শাহজাহান রচিত গল্পগ্রন্থ “ভক্ত হৃদয়ে মোহাম্মদ আশরাফুল” দেওয়ান জমির উদ্দিন রচিত কাব্যগ্রন্থ “যখন আমি দাঁড়িয়ে থাকি” এবং “বাংলাদেশ তরুণ লেখক পরিষদ” সম্পাদনায় কাব্যগ্রন্থ “অভিলাষ” বাংলাদেশ তরুণ লেখক পরিষদ থেকে বাছাইকৃত তরুণ লেখক সদস্যদের মধ্য থেকে “অভিলাষ” কাব্যগ্রন্থে অন্তর্ভূক্ত হয়েছেনÑ মলয় কান্তি মজুমদার, শচীন্দ্রনাথ বিশ্বাস, ডা. ঠাকুর দাস ম-ল, মো. ইস্রাফিল হোসেন, মো. আব্দুল আলীম, মো. আলী আজিম খাঁন, মো. আতিকুল ইসলাম, সাঈফ উদ্দিন সায়েম, আফিক শাহরিয়ার, রাসেল আমিন, সৈকত কানন, এস. এম. মনিরুল ইসলাম, মো. রাশেদ হোসেন, উম্মে হানি মেঘলা, মোসা. শিরিনা খাতুন।