শ্রমিকদের আইনসম্মত পাওনা পরিশোধের দাবীতে বিক্ষোভ

যুগবার্তা ডেস্কঃ ৬৫০ জন শ্রমিকের ২ মাসের বকেয়া বেতন ভাতা আদায় এবং আইন লঙ্ঘন-শ্রমিক নির্যাতনকারী ও ওয়াদা বরখেলাপকারী হ্যানীওয়েল গার্মেন্টস-এর মালিককে গ্রেফতারের পদক্ষেপ গ্রহনের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ স্মারক লিপি দিয়েছে শ্রমিক ফেডারেশন । আজ রবিবার শ্রম ও কর্মস্থান প্রতিমন্ত্রীর নিকট প্রদত্ত এক স্মারকলিপিতে তারা এই দাবী জানান। স্মারকলিপি প্রদানের পূর্বে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে একটি শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে শতাধিক শ্রমিক অংশ নেয়।
ফেডারেশনের সভাপতি জনাব আমিরুল হক আমিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ঃ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মিস সাফিয়া পারভীন, কেন্দ্রীয় নেতা মোঃ ফারুক খান,মিসেস আরিফা আক্তার, মোঃ কবির হোসেন, মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক, নাসিমা আক্তার,মোঃ ফরিদুল ইসলাম,পারভীন আক্তার, হ্যানীওয়েল গার্মেন্টস এর ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমিক মোঃ মিন্টু, খাদিজা, মোঃ নজরুল ও সুলতান প্রমুখ ।
সমাবেশে সংহতি বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ যুবমৈত্রীর সাধারণ সম্পাদক যুব নেতা জনাব সাব্বাহ আলী খান কলিন্স এবং একতা গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান।
বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে কিছু কিছু গার্মেন্টস মালিক আছেন যারা আইনের তোয়াক্কা করেন না, অহরহ শ্রমিক নির্যাতন করেন, অঙ্গীকার করেও বাস্তবায়ন করেন না এমনকি বিজিএমইএ এর কাছে প্রতিশ্রুতি দিয়েও পালন করেন না।
তারা অভিযোগ করে বলেন, গাজীপুরের কোনাবাড়ীতে অবস্থিত হ্যানীওয়েল গার্মেন্টস লিঃ এর মালিক মশিউর রহমান জয় এ রকম একজন লোক। সে কারখানায় কর্মরত ৬৫০ জন শ্রমিককে মে ও জুন মাসের বেতন ভাতা, ওভারটাইম এবং ঈদ বোনাস ঈদের আগে পরিশোধ করেন নাই। কারখানার মালিক ঈদের পর ১৩ এবং ১৭ জুলাই পরিশোধের কথা দিয়েও পরিশোধ করেন নাই। ১৯ জুলাই শ্রমিকেরা বিজিএমইএ এর সামনে অবস্থান করার সময় কারখানার মালিক বিজিএমইএ এর কাছে ২০ জুলাই বেতন ভাতা পরিশোধের অঙ্গীকার করেন। বিজিএমইএ এর সহ সভাপতি জনাব মাহমুদ হাসান খান বাবু এবং অতিরিক্ত সচিব ( শ্রম) জনাব রফিকুল ইসলাম এর কাছে ২০ এবং ২১ তারিখে ২০ বারের অধিক টেলিফোনে টাকা ব্যাংক থেকে তোলা হয়েছে, টাকা নিয়ে রাস্তায় আছে, টাকা কোনাবাড়ীর কাছে পৌছেছে, রাত্রি হওয়ায় পরদিন সকালে টাকা দেওয়া হবে, ঢাকায় ফেরৎকৃত টাকা যেতে আর একটু সময় লাগবে এ ধরনে অসংখ্য মিথ্যা কথা বলেছে।
এ ধরনে মিথ্যাবাদী ওয়াদা লঙঘনকারী শ্রমিক নির্যাতনকারী এবং আইন লঙঘনকারী মালিকদের চেহারা উম্মোচন ও দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি হওয়া দরকার। তারা এ ব্যাপারে (আইনলঙঘনকারী, মিথ্যাবাদি, ওয়াদা লঙ্ঘনকারী হ্যানীওয়েল গার্মেন্টস এর মালিক মশিউর রহমান জয় এর গ্রেফতার- ব্চিার এবং শ্রমিকদের বকেয়া বেতন ভাতা আদায়ের ব্যবস্থা) অতি দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য মাননীয় শ্রম প্রতিমন্ত্রীর নিকট আবেদন জানান।
সমাবেশ শেষে মিছিল নিয়ে শ্রমমন্ত্রণালয়ের দিকে গেলে পুলিশ বাধা দেয়। ফেডাশেনের সাধারণ সম্পাদক মিস শাফিয়া পারভীন, মিসেস আরিফা আক্তার, মোঃ রফিকুল ইসলাম রফিক, মোঃ মিন্টু, মোঃ নজরুল ও সুলতান ৬ জন প্রতিনিধি স্মারকলিপি পেশ করেন।