শহরের তুলনায় গ্রামের মানুষ বেশী দুর্যোগ ঝুঁকিতে বসবাস করে–মোংলায় উপমন্ত্রী

মোংলা অফিসঃ গ্রামীণ জীবন শহরের মানুষের সাথে প্রতিযোগিতার করার সময় এসেছে। গ্রাম এবং শহরের মানুষের এখন আর তেমন কোন তফাৎ নেই। গ্রামের মানুষ এখন গ্যাস সিলিন্ডার, রাইস কুকার, বেøন্ডার ব্যববহার করে। কিন্তু শহরের মানুষের তুলনায় গ্রামের মানুষ বেশী দুর্যোগ ঝুঁকিতে বসবাস করে। পারিবারিক সাইলো ( ড্রাম ) আইলা-সিডরের মতো দুর্যোগ থেকে রক্ষা করবে। পারিবারিক সাইলোতে প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী ও গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র রাখতে হবে যা দুর্যোগ থেকে রক্ষা করবে। বাংলাদেশ সবদিক থেকে স্বনির্ভরতা অর্জন করেছে। সরকার চায় প্রত্যেক মানুষ স্বনির্ভর হয়ে উঠুক।

আজ সকালে খাদ্য অধিদপ্তরের আয়োজনে মোংলার কুমারখালি খাদ্য গুদাম চত্বরে পারিবারিক সাইলো ( ড্রাম ) বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিবেশ, বন ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি এ কথা বলেন।

বুধবার সকাল সাড়ে ৯টায় অনুষ্ঠিত বিশ্ব ব্যাংকের অনুদানে মডার্ণ ফুড স্টোরেজ ফ্যাসিলিটিজ প্রোজেক্ট’র আওতায় পারিবারিক সাইলো ( ড্রাম ) বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মোংলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মোমিনুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাংবাদিক মোঃ নূর আলম শেখ, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ নাহিদুজ্জামান নাহিদ, ইউপি চেয়ারম্যান গাজী আকবর হোসেন, মোঃ ইস্রাফিল হোসেন হাওলাদার ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি শেখ কামরুজ্জামান জসিম।

উল্লেখ্য, মোংলা উপজেলায় ৮ হাজার কৃষক পরিবারের মাঝে পারিবারিক সাইলো বিতরণ করা হয় যাতে দুর্যোগের সময় বীজ ও শুকনা খাবার রাখা যায়। সারা বাংলাদেশে খাদ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে এ রকম ৫ লক্ষাধিক পারিবারিক সাইলো ( ড্রাম ) বিতরণ করা হবে বলে জানা গেছে।

উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি পরবর্তীতে রামপাল এবং মোড়েলগঞ্জে পৃথক দুটি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।