রোহিঙ্গা পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রী

যুগবার্তা ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মানবিক বিবেচনায় আমরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি। কারণ আমরা শান্তি চাই, কিন্তু মিয়ানমারের অন্যায়কে বরদাস্ত করবো না। মিয়ানমার সরকারকে আমি অনুরোধ করবো তারা যেন রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নেয়।

মঙ্গলবার বেলা পৌঁনে ১২টার দিকে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালংয়ে নিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন শেষে জনসভায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, মিয়ানমার সেনাবহিনী রোহিঙ্গাদের ওপরে যে সহিংসতা চালাচ্ছে তা পুরোপুরি মানবতাবিরোধী কাজ। এ ধরনের অমানবিক কর্মকাণ্ড আমরা কখনো মেনে নেব না। আমরা মানবিক দিক বিবেচনা করে তাদের আশ্রয় দিয়েছি। আমাদের সেনাবহিনী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষও রোহিঙ্গাদের এই সময়ে পাশে দাঁড়িয়েছে। ১৯৭১ সালে যেমন বাংলাদেশের মানুষ ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলো। তেমনি আমরাও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি।

আন্তর্জাতিকভাবে যেন মিয়ানমারের ওপরে চাপ সৃষ্টি করতে বিশ্বের সকল দেশের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানবিক দিক বিবেচনা করে আমরা তাদের আশ্রয় দিয়েছি। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়ও আমাদের মানুষদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়। মানুষ উপায় না পেয়ে ভারতে পালিয়ে যায়। তাই আমাদের যতটুকু সামর্থ আছে সাহায্য করছি। এ বিষয়ে আমরা কমিটিও করে দিয়েছি।’
তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের খাদ্য, আশ্রয় দেওয়া হচ্ছে। আমি রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে আহ্বান জানাচ্ছি। তবে প্রতিবেশী দেশ হিসেবে আমাদের যা করার দরকার আমরা সেটি করবো।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মিয়ানমারে যেভাবে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে তাতে কি তাদের বিবেককে নাড়া দেয় না? একজনের ভুলে এভাবে লাখ লাখ মানুষ ঘরহারা হচ্ছে। আমরা শান্তি চাই।’
তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ১৬ কোটি মানুষের দেশ। সবার খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারছি। সেখানে আরও ২/৫/৭ লাখ মানুষকেও খেতে দিতে পারবো।’
এ সময় তিনি স্থানীয়দের উদ্দেশে বলেন, ‘এখন যারা যুবক তারা হয়তো মুক্তিযুদ্ধ দেখেননি। কিন্তু আমরা দেখেছি। তাই রোহিঙ্গাদের যেন কোনও কষ্ট না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।’

এর আগে বেলা সোয়া ১০টার দিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে করে তিনি কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছান। সেখান থেকে গাড়ি বহরে কুতুপালংয়ের উদ্দেশে রওনা হন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি ক্যাম্পে পৌঁছান।-আমাদের সময়.কম