রাবিতে উপাচার্যের নামে মাদ্রাসার নামকরণ

7

রাবি প্রতিনিধি: এবার রাবি উপাচার্য অধ্যাপক এম. আব্দুস সোবহান খোদ নিজের নামেই নামকরণ করলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিত একটি মাদ্রাসার (হাফেজিয়া মাদ্রাসা)। তার নামের সঙ্গে মিল রেখে মাদ্রাসার নামকরণ করা হয়েছে ‘সোবহানিয়া আলকুরআনুল কারীম হিফজখানা’। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ অধ্যাপকরা বলছেন, উপাচার্যের নামের সঙ্গে মিলিয়ে মাদ্রাসার নাম রাখা এক ধরনের অন্যায়। বিষয়টি নৈতিকভাবে সমর্থনযোগ্য নয়।

মাদ্রাসার নামকরণ কমিটির সদস্যরা জানান, উপাচার্যের নামের সঙ্গে মিল রেখেই মাদ্রাসার নামকরণ করা হয়েছে। উপাচার্য নিজেই এত সম্মতি দিয়েছেন।

তারা আরও জানান, উপাচার্য অধ্যাপক এম. আব্দুস সোবহানের উদ্যোগে মাদ্রাসাটি প্রতিষ্টিত হয়েছে বলে তার জন্য ‘দোয়া করতে’ ও ‘স্মরণে রাখতে’ উপাচার্যের নামের সঙ্গে মিলিয়ে নামকরণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মাদ্রাসার নামকরণ কমিটির সদস্য ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিমপাড়া জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ আলী হোসেন বলেন, উপাচার্যের আমলে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলে, তার নামের সঙ্গে মিলিয়ে ‘সোবহানিয়া আলকুরআনুল কারীম হিফজখানা’ নামকরণ করার প্রস্তাব রাখি। বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমাম এবং আমি পরামর্শ করে উপাচার্যের কাছে এই নামের প্রস্তাব রেখেছিলাম। ‘সোবহান’ শব্দের বাংলা অর্থ পবিত্র। আমরা দোয়াও করবো, স্মরণ করবো যে তিনি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন। উপাচার্য নামটি রাখার ব্যাপারে অনুমোদন দিয়েছেন।

নামকরণের বিষয়ে উপাচার্যকে জানানো হয়েছিলো উল্লেখ করে তিনি বলেন, নামকরণের আগে উপাচার্যকে বলেছিলাম, আপনার জন্য দোয়া করবো। আপনার উদ্যোগে যখন মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হলো, আপনার জন্য দোয়া করতে আমরা বলবো, উনার নামে দোয়া করো। তাই উপাচার্যের নামের সঙ্গে মিলিয়ে নামকরণ করা হয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় ২ কোটি টাকা ব্যয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কবরস্থান জামে মসজিদের পুনর্র্নিমাণ করা হয়। চলতি বছরের ৬ মে ওই মসজিদের উদ্বোধন করা হয়। সম্প্রতি ওই মসজিদের দ্বিতীয় তলায় ‘সোবহানিয়া আলকুরআনুল কারীম হিফজখানা’ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। নভেম্বর মাস থেকে এ হাফিজিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানা গেছে।

জানতে চাইলে কবরস্থান জামে মসজিদের ইমাম মোসাদ্দেক হোসেন বলেন, হাফেজিয়া মাদ্রাসায় নভেম্বরের শুরুতে শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম শুরু করা হবে। প্রাথমিকভাবে ২০ জন শিক্ষার্থী ভর্তির পরিকল্পনা রয়েছে। মাদ্রাসার ২ জন শিক্ষকের দ্বারা তাদের পড়ানো হবে। ভর্তি ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ হাজার টাকা। আবাসিক এই প্রতিষ্ঠানে থাকা-খাওয়াসহ সর্বমোট ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ হাজার ২০০ টাকা।

এ বিষয়ে কথা বলতে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের ফোন নাম্বারে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক মো. সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, সত্যিই যদি উপাচার্যের নামের সঙ্গে মিলিয়ে মাদ্রাসার নামকরণ হয়ে থাকে, তাহলে অবশ্যই এটা এক ধরনের অন্যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদে কারও নাম দিতে গেলে বিভিন্ন কমিটির সিদ্ধান্ত লাগে, একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেটে অনুমোদন দরকার হয়। এক্ষেত্রে অনুমোদন হয়েছে কি না, সেটা আমি জানি না। তবে উপাচার্যের নামে মাদ্রাসার নামকরণ করার কোনো কারণ নেই।

উল্লেখ্য, রাবি উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সুবহানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত করছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ এবং প্রশাসনিক কাজে অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিস্তর অভিযোগ রয়েছে উপাচার্যের বিরুদ্ধে।