রাজশাহীতে খোঁজ মিলছে না নিহত দুই জঙ্গির

রাজশাহী অফিসঃ টাঙ্গাইলে র‌্যাবের অভিযানে নিহত জঙ্গি আতিকুর ও সাগরের বাড়ির সন্ধান রাজশাহীতে পাওয়া যাচ্ছে না। তাদের দুজনের বাড়ি রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায়, র‌্যাব-১২ এর পক্ষ থেকে এমন তথ্য জানানো হলেও এখানে তাদের ঠিকানা পাওয়া যাচ্ছে না।

র‌্যাব-১২ বলছে, টাঙ্গাইল শহরের কাগমারা মির্জামাঠ এলাকায় র‌্যাবের অভিযানে যে দুই জঙ্গি নিহত হন, তাদের বাড়ি রাজশাহীর চারঘাট উপজেলায়। এরা হলেন, উপজেলার নিমপাড়া গ্রামের লতিফুর রহমানের ছেলে আতিকুর রহমান (২০) এবং ইউসুফপুর গ্রামের জুনায়েত হোসেনের ছেলে সাগর হোসেন (২২)।

তবে রাজশাহীর র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এই দুই জঙ্গিকে শনাক্ত করতে পারেনি। রোববার দুপুরে চারঘাটের ইউসুফপুর ও নিমপাড়া গ্রামে সরেজমিনে গিয়েও এ দুটি পরিবারের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

নিমপাড়া গ্রামের বাসিন্দারা জানান, এ গ্রামে আতিকুর নামে দুই যুবক আছেন। তবে তারা বাড়িতেই আছেন। এই দুজন ছাড়া অন্য কোনো আতিকুরকে তারা চেনেন না। আতিকুরের বাবা-মায়ের যে নাম বলা হচ্ছে, এ নামেও কাউকে খুঁজে পাচ্ছেন না তারা।

ইউসুফপুর গ্রামের বাসিন্দারা জানান, বাবার নামের সঙ্গে মিল রেখে সাগর নামে কোনো যুবককে তারা চিনতে পারছেন না। এ গ্রামের কোনো যুবক র‌্যাবের অভিযানে নিহত হয়েছেন, এমন কোনো কথাও গ্রামের মানুষের কাছে শোনা যাচ্ছে না। তবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা গ্রামে খোঁজখবর নিচ্ছে।

চারঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারণ চন্দ্র বর্মণ জানান, এই দুই যুবকের ব্যাপারে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কিংবা র‌্যাবের পক্ষ থেকে তাদের কোনো তথ্য দেয়া হয়নি। তবে ওই দুই জঙ্গির বাড়ি চারঘাট, গণমাধ্যমে এমন খবর দেখেই তিনি এলাকায় খোঁজখবর নিয়েছেন। কিন্তু বাবা-মায়ের নামের সঙ্গে মিল রেখে এ নামে কোনো যুবককে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

ওসি বলেন, ‘নিমপাড়া ও ইউসুফপুর চারঘাটের দুটি ইউনিয়ন। তবে এ দুটি নামে দুটি গ্রামও আছে। গ্রাম দুটিতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশদের নিয়ে আমি খোঁজখবর নিয়েছি। কিন্তু কেউ তাদের চিনতে পারছে না। নিহত জঙ্গিরা ভূয়া জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করতে পারে। তারপরেও আমাদের অনুসন্ধান অব্যাহত আছে।’

নিমপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরুজ্জামান বলেন, শনিবার রাতে আইনশৃঙ্খখলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে বিষয়টি জানানোর পর থেকে তিনি খোঁজখবর নেয়া শুরু করেন। নিমপাড়া গ্রামে লতিফ নামে একজনকে পাওয়া যায়। তবে তার ছেলে নিখোঁজ নয়, পরিবারের সঙ্গেই থাকে। আর লতিফুর রহমানের ছেলে আতিকুর নামে কাউকে পাওয়া যায়নি।

ইউসুফপুর ইউপি চেয়ারম্যান শফিউল আলম রতন বলেন, তিনিও বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান করেছেন। তবে তিনিও জঙ্গি সাগরের সন্ধান পাননি। তার কাছে সংরক্ষিত ওই গ্রামের ভোটার তালিকাতেও বাবা-মায়ের নামের সঙ্গে মিল রেখে সাগর নামে কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে এলাকায় সাগর নামে কয়েকজন আছে। তারা বাড়িতেই থাকে, কেউ নিখোঁজ নয়।

র‌্যাব-৫ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মাহবুবুল আলম বলেন, পুলিশের পাশাপাশি তারাও চারঘাটে নিহত দুই জঙ্গি সম্পর্কে খোঁজখবর নিচ্ছেন। কিন্তু এখনও তাদের কোনো হদিস মেলেনি। বিষয়টি নিয়ে র‌্যাব-১২ এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। তারাও বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

শনিবার সকালে টাঙ্গাইল শহরের কাগমারা মির্জামাঠ এলাকায় জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে একটি বাড়িতে র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালায়। এ সময় জঙ্গিরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে। র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছুঁড়লে দুই জঙ্গি ঘটনাস্থলেই নিহত হন।