যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু দেড় লাখ ছাড়িয়েছে

2

রফিকুল ইসলাম সুজনঃ বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত এক কোটি ৬৯ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃত্যু ছয় লাখ ৬৪ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যুর মিছিলে এখনও শীর্ষে বিশ্ব মোড়ল যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এক লাখ ৫২ হাজার ছাড়িয়েছে। দেশটি কানাডা ও মেক্সিকোর সাথে সীমান্ত বন্ধ আরও ত্রিশ দিন বর্ধিত করেছে। কারন সীমান্তের দেশ দুটিতে সংক্রামণ বেড়েই চলছে। মৃত্যু সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে ল্যাটিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল। দেশটিতে লাফিয়ে লাফিয়ে আক্রান্ত বাড়ছে। দেশটিতে মৃত্যু ৮৮ হাজার ছাড়িয়েছে।

মৃত্যু সংখ্যায় এখন তৃতীয় অবস্থায় ইউরোপের দেশ যুক্তরাজ্য। দেশটি এ পর্যন্ত মৃত্যু ৪৫ হাজার ছাড়িয়েছে। ম্যাক্সিকোতে মৃত্যু ৪৪ হাজার ছাড়িয়েছে। ইউরোপ ইউনিয়নের অনেক দেশেই এখন আক্রান্তের সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। কমতে শুরু করায় ইতালী, ফ্রান্স, গ্রীসসহ ইউরোপের কয়েকটি দেশ লকডাউন শিথিল করেছে। এসব দেশে নাগরিকদের সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে কিছু বাধ্যকতা রাখা হয়েছে। পড়তে হবে মাস্ক ।আর এক পরাশক্তি রাশিয়ায় সংক্রামণ ছড়িয়ে পড়ছে। দেশটিতে মৃত্যু তের হাজার ছাড়িয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়া দেশ ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশে সংক্রামণ বেড়েই চলছে। ভারতে মৃত্যু ৩৪ হাজার ছাড়িয়েছে। পাকিস্তানে সংক্রাম বেড়েই চলছে। ইতিমধ্যে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে উন্নয়নশীল রাষ্ট্র বাংলাদেশে। দেশটিতে আক্রান্ত দুই লাখ ৩২ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃত্যু সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। মৃত্যু তিন হাজার ৩৫ জন।

চীনের উহান রাজ্যে গত ডিসেম্বরে এই ভাইরাসটির সংক্রমণ শুরু হয়।তারপর একে একে ছড়িয়ে বিশ্বের ১১৩ টি দেশ ও অঞ্চলে। এখনও এই ভাইরাসের কোন ঔষধ আবিস্কার হয়নি। তবে জাপান, চীন, আমেরিকা, কানাডা, ইতালী, কিউবা, রাশিয়া টিকা আবিস্কারে অনেক দূর এগিয়েছে বলে জানাগেছে। চীন ৯০ শতাংশ কার্যকর একটি টিকা আবিস্কার করেছে বলে জানিয়েছে।রাশিয়ও একটি ঔষধ আবিস্কারের কথা জানিয়েছে। বাংলাদেশও টিকা আবিস্কারে কাজ করছে।

তবে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় টীকা আবিস্কারে প্রাথমিক ধাপ অতিক্রম করার কথা জানিয়েছে। এটা বিশ্বের জন্য বড় একটা সুখবর।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মনে করে লকডাউন তুলে নেওয়ার সময় এখনও আসেনি। সংক্রামণ বেড়ে যাওয়ায় পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে বলে মনে করছে।

বিশ্বে আজকে পর্যন্ত আক্রান্ত এক কোটি ৬৯ লাখ ৫৬ হাজার ২৮৮ জন। সারাবিশ্বে মৃত্যু ছয় লাখ ৬৪ হাজার ৬০২ জন। সুস্থ হয়েছে এক কোটি পাঁচ লাখ ছয় হাজার ২৯০ জন। উৎপত্তি দেশ চীনে আক্রান্ত ও মৃত্যু উভয় কমলেও উৎপত্তিস্থল উহানে ফের সংক্রামন দেখা দিয়েছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৬৩৪ জন। যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যু ১ লাখ ৫২ হাজার ৭৩৮ জন । যুক্তরাজ্যে মৃত্যু ৪৫ হাজার ৯৭১ জন। ইতালীতে মৃত্যু ৩৫ হাজার ১২৩ জন। কানাডায় মৃত্যু ৮ হাজার ৯১২ জন। রাশিয়ায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে তের হাজার ৬৭৩ জনের। স্পেনে মৃত্যু ২৮ হাজার ৪৩৬ জন । ফ্রান্সে মৃত্যু ৩০ হাজার ২২৩ জন। ইরানে এ পর্যন্ত মৃত্যু ১৬ হাজার ৩৪৩ জন। ব্রাজিলে মৃত্যু ৮৮ হাজার ৬৩৪ জন। বেলজিয়ামে মৃত্যু হয়েছে ৯ হাজার ৮১২ জন। ম্যাক্সিকোতো মৃত্যুর সংখ্যা ৪৪ হাজার ৮৭৬ জন। পেরুতে মৃত্যু ১৮ হাজার ৩০ জন। জার্মানে মৃত্যু ৯ হাজার ২০৭ জন। তুরস্ক মৃত্যু ৫ হাজার ৬৪৫ জন। সৌদী আরবে মৃত্যু দুই হাজার ৮১৬ জন। মালয়েশিয়ায় মৃত্যু ১২১ জন। পাকিস্তানে মৃত্যু পাঁচ হাজার ৮৯৩ জন। ভারতে মৃত্যু হয়েছে ৩৪ হাজার ৯৪৮ জন। বাংলাদেশে আক্রান্ত দুই লাখ ৩২ হাজার ১৮৪ জন। বাংলাদেশে এ পর্যন্ত মৃত্যু গিন হাজার ৩৫ জন ।