মার্কেট কন্ট্রোল করা দরকার–কাদের

5

যুগবার্তা ডেস্কঃ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মার্কেট কন্ট্রোল করা দরকার। অসাধু ব্যবসায়ীরাও আছে, তারাও কারসাজি করে। সেগুলো নিয়ন্ত্রণ করার জন্য এবং কারসাজিটা যাতে বন্ধ হয় সে ব্যাপারে সরকারও কঠোর অবস্থানে আছে।

আজ সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

পেঁয়াজের এই পরিস্থিতি কতদিন চলবে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার মনে হয় বেশিদিন চলবে না। স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসবে। একটা অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, এই অবস্থা স্বাভাবিক হতে হয়তো কিছু সময় লাগবে। এটা ঠিক হয়ে যাবে। সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছে।

সব ধরনের সবজি ও পণ্যের দামও ঊর্ধ্বমুখীর ব্যাখ্যায় ওবায়দুল কাদের বলেন, মাঝে মাঝে এমন অবস্থা হয়। কতগুলো কারণ আছে, কিছু গুজব ছড়িয়ে সংকট সৃষ্টি করা হয়। আমাদের দেশে এটি চলে। তাছাড়া এখানে কথায় কথায় পরিবহন ধর্মঘট এ কারণেও সরবরাহ লাইনটি দুর্বল হয়ে যায়। আমার মনে হয় আস্তে আস্তে শীত আসছে, শাক-সবজির বাজারেও স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসবে।

ক্যাসিনো অভিযানের মধ্য দিয়ে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান থেমে গেছে কিনা এমন প্রশ্নের পরে তিনি বলেন, কে বলেছে থেমে গেছে? এখনো ব্যাংক হিসাব তলব, দুদকের মামলা দেওয়া, চার্জশিট দেওয়াসহ সকল প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। এখনো অনুসন্ধান চলছে অভিযানের সার্বিক প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে, সময় মত আরো দেখতে পাবেন।
ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রসঙ্গে বলেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন আমরা ভালোভাবে করতে চাই এবং আমরা বিজয়ী হতে চাই। সিটি নির্বাচন যথাসময়ে হবে বলেই ঢাকা দুই মহানগরের সম্মেলন করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে নতুন মুখ আসছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি আপনাদের বারবার এ কথাই বলেছি যে, এটি আওয়ামী লীগ সভাপতির এখতিয়ার। আমাদের সভাপতি যেটা ভালো মনে করবেন সেটাই হবে। কারণ উনি আমাদের কাউন্সিলরদের মাইন্ড সেটাপ ভালো করেই জানেন। আমাদের কাউন্সিলররাও সবসময় নেত্রীর ওপর আস্থা রাখেন। নেত্রী যেটা সিদ্ধান্ত নেবেন সেই সিদ্ধান্তে আমাদের কোনো দ্বিমত নেই, এতে আমি সাধারণ সম্পাদক থাকি আর না থাকি সেটা প্রশ্ন নয়।