ভার্চুয়াল কোর্টের সুবিধা পাচ্ছেনা ৯৫ শতাংশেরও বেশি আইনজীবী

2

নূর মোহাম্মদ : প্রশিক্ষণের অভাব ও প্রয়োজনীয় উপকরন নিশ্চিত করতে না পারায় ভার্চুয়াল আদালত অধিকাংশ ক্ষেত্রে সফলতার মুখ দেখছে না। অপেক্ষাকৃত তরুন অাইনজীবীদের একটা অংশ সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করলেও প্রবীনরা পিছিয়ে রয়েছেন এখনো।

এদিকে বেশিরভাগ আইনজীবীর আয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বেকার হয়েছে কয়েক লাখ মানুষ। অনেক আইনজীবী তাদের চেম্বার ভাড়া ও কর্মচারীদের বেতন নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন। অনেকে ভাড়া দিতে না পেরে চেম্বার ছেড়ে দিচ্ছেন, আর কর্মচারিদের পাঠিয়েছেন গ্রামের বাড়িতে।

জানা গেছে ৫ শতাংশেরও কম আইনজীবী ভার্চুয়াল কোর্টের সুবিধা পাচ্ছেন। বাকিদের মধ্যে সামান্য একটা অংশ স্বচ্ছল হলেও অনটনে রয়েছেন ৮০ শতাংশ। আইনজীবী সমিতি থেকে ঋণ দিলেও সেটা খুবই সামান্য। তাই করোনার এই সময়ে সরকারের আর্থিক সহযোগিতার পাশাপাশি প্রশিক্ষণের দাবি জানিয়েছেন অনেক আইনজীবী।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ এম অামিন উদ্দিন বলেন, অধিকাংশ আইনজীবী ভার্চুয়াল কোর্টে অভ্যস্তনা। এই পদ্ধতিতে সমাধান হবেনা। তবে পরিস্থিতি বিবেচনায় অাপতকালীন সময়ের জন্য আগ্রহী আইনজীবীদের প্রশিক্ষণ দিয়ে এ পদ্ধতিতে যুক্ত করা যেতে পারে।

ঢাকা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ইকবাল হোসেন বলেন, আমার ধারনা সব মিলিয়ে দুই শতাংশ আইনজীবী ভার্চুয়াল কোর্টের সুবিধা পাচ্ছে। বর্তমান সময়ে এই পদ্ধতি ভাল উদ্যোগ হলেও অভিজ্ঞতার অভাবে বেশিরভাগ আইনজীবী এই সুবিধা নিতে পারছেনা। তাই প্রশিক্ষণ, প্রয়োজনীয় উপকরন নিশ্চিত করা এবং আরো কোর্ট বাড়ানো দরকার বলে মনে করেন তিনি।

এছাড়া সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, অধিকাংশ আইনজীবী আর্থিক অনটনে রয়েছেন। তাই এ মুহূর্তে সরকারের পক্ষ থেকে প্রণোদনা দরকার। সেইসঙ্গে ভার্চুয়ালের পাশাপাশি কিছু নিয়মিত কোর্ট চালু করার পরামর্শ দেন তিনি। যাতে ভার্চুয়ালের সুবিধা বঞ্চিতরা সেখানে কাজ করতে পারে।

করোনার কারনে দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকার পর ১১ মে থেকে ভার্চুয়াল কোর্টে বিচার কাজ শুরু হয়। এখনো পর্যন্ত নিম্ন আদালতে কেবল জামিন শুনানি চলছে। তবে হাইকোর্টে জামিন ছাড়াও রিটসহ সীমিত পরিসরে চলছে অন্যান্য মামলার শুনানি।আমাদের সময়.কন