বিক্ষোভকারীদের ওপর সুদান সেনাবাহিনীর গুলি, নিহত বেড়ে ৬০

7

সুদানের রাজধানী খার্তুমে সেনা সদর দপ্তরের সামনে অবস্থানরত বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে দেশটির সেনাবাহিনী সোমবার অতর্কিতে ‘হামলা’ চালিয়েছে। এতে অন্তত ৬০ জন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে শতাধিক। সুদানিজ প্রফেশনালস এসোসিয়েশন (এসপিএ) ও প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে আল-জাজিরা ও বিবিসি এ তথ্য জানায়।

সেনাবাহিনীর এ হামলাকে এসপিএ ‘গণহত্যা’ হিসেবে উল্লেখ করেছে।

এছাড়া ইউরোপীয় দেশগুলো সুদান সেনাবাহিনীর এ হামলার নিন্দা জানিয়েছেন।

এএফপি’র একজন সংবাদদাতা জানান, সোমবার বিক্ষোভস্থল থেকে প্রচণ্ড গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে। এছাড়া রাজধানীর সড়ক জুড়ে ব্যাপক সৈন্য মোতায়েন করা হয়েছে।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, দেশটির সেনাবাহিনী বিক্ষোভকারীদের ওপর প্রথমে টিয়ার গ্যাস ছুঁড়ে। এরপর তাদের ওপর ‘সাউন্ড গ্রেনেড’ দিয়ে হামলা চালায় ও গুলি করে।

দেশটির সামরিক সামরিক পরিষদ বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সকল ধরনের আলোচনার চুক্তি বাতিল করে দিয়েছে এবং আগামী নয়ত মাসের মধ্যে নির্বাচনের ঘোষণা দেয়।

তবে বিক্ষোভকারীদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তারা তাদের আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

গত ডিসেম্বরে শুরু হওয়া বিক্ষোভে নেতৃত্ব দেয় সুদানিজ প্রফেশনালস এসোসিয়েশন (এসপিএ)।

এপ্রিলে বশিরের কর্তত্ববাদী শাসনের অবসান ঘটলেও বিক্ষোভকারীরা সেনা সদর দপ্তরের বাইরে অবস্থান নিয়ে অস্থায়ী কর্তৃপক্ষের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে সামরিক পরিষদের কাছে দাবি জানিয়ে আসছিল।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন বিক্ষোভকারীদের ওপর শক্তি প্রয়োগ না করার আহ্বান জানিয়ে বেসামরিক শাসকের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের কথা বলেছে।

খার্তুমে মার্কিন দূতাবাস বলছে, নিরাপত্তা বাহিনী বিক্ষোভকারী ও অন্যান্য বেসামরিক নাগরিকের ওপর হামলা চালিয়েছে যা সঠিক নয় এবং তা অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। তথ্য সূত্র: এপি, নিউ ইয়র্ক টাইমস, আল-জাজিরা।-ইত্তেফাক