বাস ভাড়া বৃদ্ধি, ভোগান্তিতে দুরপাল্লার যাত্রীরা

মো.পাভেল ইসলাম: গত শুক্রবার রাত বারোটার পর থেকে সারাদেশে একযোগে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। এরই জেরে রাজশাহীতে বাসের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে৷ এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন দুরপাল্লার যাত্রীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী বাসের ভাড়া নন-এসিতে ১২০ টাকা এবং এসিতে ২০০ টাকা বাড়ানো হয়েছে। এছাড়াও অন্যান্য আন্তঃজেলা বাসেও প্রায় ২২ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি পেয়েছে। রাজশাহী থেকে ঢাকার নন-এসি বাসে প্রতি আসনে ভাড়া ৬০০ টাকা থেকে ২০% বাড়িয়ে ৭২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এসি বাসের ভাড়া ১২০০ টাকা থেকে ১৬.১৬% বাড়িয়ে ১৪০০ টাকা করা হয়েছে। এছাড়া রাজশাহী থেকে চট্রগ্রামের ভাড়া নন-এসি বাসে প্রতি আসনে ১০০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১২৫০ টাকা এবং এসিতে ২৪০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২৮০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। রাজশাহী থেকে কলকাতার ভাড়া ১৭৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৯৫০ টাকা হয়েছে।

দাম বৃদ্ধিতে ক্ষোভ জানিয়ে গার্মেন্টস কর্মী এক যাত্রী বলেন, আমরা সাধারণ জনগন কোথায় যাবো। ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি করি। বাড়িতে অসুস্থ মাকে দেখতে আসছিলাম। যদি বাড়ি আসতেই হাজার টাকা লেগে যায়, তাহলে চাকরি করে কি লাভ। এভাবে ভাড়া বাড়ানো মোটেই ঠিক হয়নি। গেলে টাকাতো গরিবের পকেট থেকেই যাবে।

গত ৫ আগস্ট রাত ১২টার পর থেকে জ্বালানি তেলের দাম রাতারাতি ৪২ থেকে ৫২ শতাংশ বাড়ানো হয়। ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটার প্রতি ৮০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১১৪ টাকা, পেট্রোলের দাম ৮৬ টাকা থেকে ১৩০ টাকা এবং অকটেনের দাম ৮৯ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা করা হয়। অর্থাৎ ডিজেল ও কেরোসিনের দাম প্রতি লিটারে বেড়েছে এক লাফে ৩৪ টাকা। অকটেনের দাম বেড়েছে লিটারে ৪৪ টাকা। সবচেয়ে বেশি বেড়েছে পেট্রোলের দাম। প্রতি লিটারে এর দাম বাড়ে ৪৬ টাকা।

এই দাম বৃদ্ধির ফলে রাজশাহীতে চলাচল করা বাসের মালিকরাও তাদের পরিবহন ভাড়া বাড়িয়েছেন। তাদের দাবি, বাড়তি টাকা দিয়ে পেট্রোল কিনে দুরপাল্লার বাসে করে যাত্রীদের নিয়ে গেলে তাদের লাভের কিছুই থাকছে না। এতে করে তারা ভাড়া বাড়াতে একরকম বাধ্য হয়েছেন বলে জানান।

রাজশাহীর সড়ক ও পরিবহন গ্রুফের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মতিউল হক ‍টিটু বলেন, রাজশাহীতে দুরপাল্লার বাস চলে ১৫০ মতো। জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় ভোগান্তিতে পড়েছেন এসব বাসের যাত্রীরা।