বাম গণতান্ত্রিক বিকল্প গড়ার প্রত্যয়ে প্রতিনিধি সভা

12

যুগবার্তা ডেস্কঃ আওয়ামী ফ্যাসিবাদী দুঃশাসন রুখে দাঁড়ান, জনগণের সংগ্রামী ঐক্য জোরদার করুন, বাম গণতান্ত্রিক বিকল্প শক্তি গড়ে তুলুন এই আহবান জানিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোট এর উদ্যোগে আজ দিনব্যাপী রাজধানীর তোপখানা রোডস্থ বিএমএ মিলনায়তনে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সারা দেশের ৬৪টি জেলা থেকে ৬৫০ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। দিনব্যাপী প্রতিনিধি সভায় জেলা থেকে আগত প্রতিনিধিগন তাদের মতামত ও প্রস্তাবনা রাখেন। সভার শুরুতে সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য কমরেড ˆসয়দ আবু জাফর আহমদ, বাসদের কমরেড জাহেদুল হক মিলু, কমরেড রনজিৎ কুমারসহ সকলের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব উত্থাপন করে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

প্রতিনিধি সভায় সভাপতিত্ব করেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক কমরেড মোশাররফ হোসেন নান্নু। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিপিবি সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, বাসদ এর সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাইফুল হক, বাসদ (মার্কসবাদী) এর কেন্দ্রীয় পরিচালনা পরিষদ সদস্য কমরেড শুভ্রাংশু চক্রবর্ত্তী, গণসংহতি আন্দোলনের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী সমন্বয়ক আবু হাসান রুবেল, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহবায়ক কমরেড হামিদুল হক, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড লিয়াকত আলী।

সভায় শোক প্রস্তাব উপস্থাপন করেন সিপিবির সহকারী সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাজ্জাদ জহির চন্দন।
প্রতিনিধি সভায় কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিপরীতে দাঁড়িয়ে নয়া উদারবাদ ও মুক্তবাজারের নীতিতে বর্তমান সরকার দেশ চালাচ্ছে। তার ফলে দেশে অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক অস্থিরতা চলছে। রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে নির্বাচন ব্যবস্থা, তাকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের মাধ্যমে। আর লুটপাটের মাধ্যমে বুর্জোয়া ব্যবস্থাকে আরো পাকাপোক্ত করা হচ্ছে।
কমরেড খালেকুজ্জামান বলেন, স্বাধীন হওয়ার পর গত ৪৮ বছরে বুর্জোয়ারা আদি পুঁজি সঞ্চয়ের পর্যায় অতিক্রম করে তাদের হাতে (৩৬টা পরিবার) অনেক পুঁজি জমেছে। এখন নিরুপদ্রব লুণ্ঠন বহাল রাখতে এক দলীয় শাসন কায়েম করতে চায়। যে কারণে জনগণের ভোট ছাড়া ৩০ ডিসম্বের নির্বাচন হয়েছে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনার জন্য।
তিনি আরো ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বুর্জোয়ারা গত ৪৮ বছরে ২টা প্রেসিডেন্ট হত্যা, ৫ বার সামরিক শাসন, হাজার হাজার রাজনৈতিক কর্মী খুন করেছে। বেসামরিক লেবাসে ˆস্বরতন্ত্র ও ফ্যাসিবাদ কায়েম করেছে।
তিনি এই অবস্থার অবসানে মূল শত্রু ফ্যাসিবাদকে মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান জানান। বিভিন্ন শ্রেণি পেশার সাথে মতবিনিময় করে শ্রম, কৃষি, ছাত্র সমস্ত ক্ষেত্রে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এবং প্রতিটি ক্ষেত্রে বিকল্প প্রস্তাব তুলে ধরে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করতে উদ্যোগ নেয়ার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ২২ পরিবার তাড়িয়ে ৩৬ পরিবার প্রতিষ্ঠা মুক্তিযুদ্ধের আকাঙ্খা ছিল না