বানারীপাড়ায় বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে কলেজ ছাত্রী ধর্ষন

বরিশাল অফিসঃ বিয়ের প্রলোভনে বানারীপাড়ায় এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বানারীপাড়া উপজেলার উত্তর নাজিরপুর (দান্ডয়াট) গ্রামের মোঃ হানিফ ঘরামীর মেয়েকে ঐ একই গ্রামের মোঃ বসু আকনের ছেলে রাব্বি আকন গত ১৪ ই এপ্রিল রাতে মেয়ের পৈত্রিক বসত ঘরে কেহ না থাকার সুবাধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষন করে। বিষয়টি স্থানীয় হেলাল ঘরামী, দুলাল ঘরামী, হানিফ ঘরামী, সোসা,রুপা বেগম সহ অন্যান্যদের জানালে তারা বিবাহের জন্য ধর্ষক রাব্বি আকনকে প্রস্তাব দিলে সে বিয়ে করতে অস্বীকার জানায়। পরবর্তীতে হানিফ ঘরামীর নির্যাতিত মেয়েটি বাদী হয়ে বানারীপাড়া থানায় রাব্বী আকনকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন(সংশোধন) ২০০৩এর ৯(১) ধারায় মামলা দায়ের করে।

বানারীপাড়া থানা ইনচার্জ মোঃ সাজ্জাদ হোসেন বিষয়টি আমলে নিয়ে ১৫ই এপ্রিল মামলাটি রুজু করেন। এবং আসামী রাব্বী আকনকে গ্রেফতার করে কোর্টে প্রেরন করেন। উল্লেখ্য বাদী বানারীপাড়া ডিগ্রী কলেজের ২০১৮ সালের এইচ এস সি পরীক্ষার্থী। গত তিন বছর যাবৎ ছাত্রীটির সাথে রাব্বী আকনের প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। তাদের সম্পর্কের কথা জানতে পেরে মেয়ের বাবা মা মেয়েকে বিমান বন্দর থানার বাঘিয়া গ্রামের সাদেক মীর’র ছেলে মোঃ রানা মীরের সাথে পারিবারীক ভাবে বিবাহ দেন। রাব্বী আকন বিষটি কোন ভাবেই মেনে নিতে না পেরে বিবাহের পূর্বের প্রেমের স্মৃতি চিহ্ন স্বরুপ বিভিন্ন ধরনের ছবি, সম্পর্কের বিভিন্ন প্রমানাধি সুমনার স্বামী রানা মীরের কাছে প্রেরন করে সুমনার প্রতি সন্দেহের সৃষ্টি করে। সন্দেহ চরম পর্যায়ে গড়ালে উভয় পক্ষের মধ্যস্থতায় গত ১০ ই এপ্রিল তাদের সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। বিবাহ বিচ্ছেদের পর রাব্বী আকন পুনরায় সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে।