বাধা অতিক্রম করে এগিয়ে যাবার মিছিলে এখন পর্যটন শিল্প–পর্যটন মন্ত্রী

যুগবার্তা ডেস্কঃ বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, শত বাধা অতিক্রম করে এগিয়ে যাবার মিছিলে সামিল হয়েছে বাংলাদশের পর্যটন শিল্প। তাই এবারের বিশ্ব পর্যটন দিবস বাংলাদেশের এশিল্পে এক নতুন মাত্রা যোগ করবে।
তিনি বলেন, পর পর দুই মেয়াদে UNWTO Commission for South Asia (CSA) এর নির্বাচিত ভাইস-চেয়ার হিসেবে দাায়িত্ব পালন এবার চীনের চেংদুতে অনুষ্ঠিত সংস্থার ২২ তম ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে CSA এর চেয়ার নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশ। এছাড়া সংস্থার Global Code of Ethics প্রণয়নের জন্য গঠিত Adhoc Committee তে বাংলাদেশকে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করা হয়য়ে যা খুবই সম্মানের। আগামী ১২-১৪ নভেম্বর ঢাকায় 10th OIC International Conference of Tourism Ministers ( ICTM) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, যাতে প্রায় ৫৭ টি সদস্য দেশের প্রতিনিধিবৃন্দ অংশগ্রহণ করবেন।
তিনি বলেন, ইতোমধ্যে বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট International Conference on Buddhist circuit tourism, PATA Nwe Tourism Frontiers Forum, 29th Joint Commission Meeting of UNWTO Commission for Asia And the Pacific অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ গুলো পর্যটন খাতে বাংলাদেশর এগিয়ে যাবার স্বাক্ষর বহন করে।
তিনি জানান, বিশ্ব পর্যটন দিবস উপলক্ষে মন্ত্রণালয়, বিটিবি, বিপিসি ও বিভিন্ন সংস্থা সমূহ ১২ দিন ব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে। এর মধ্যে বুধবার সকাল সাড়ে আটটায় রাজধানীর মৎস্য ভবন থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি পর্যন্ত র‌্যালি, সকাল ৯টায় টিএসসি অডিটোরিয়ামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের আলোচনানুষ্ঠান, বিকেল ৩ টায় রবীন্দ্র সরোবরে এটিজেএফবি’র পর্যটন মেলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে বসুন্ধরা কনভেশন সেন্টারে এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার আয়োজন।
বুধবার সকালে শাহবাগস্থ বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের (বিটিবি) সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এ প্রেস কনফারেন্সে স্বাগত বক্তৃতা করেন বিটিবি’র প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা ড. মো. নাসির উদ্দিন। এতে উপস্থিত ছিলেন বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. ইমরান, বিপিসি’র চেয়ারম্যান আখতারুজজামান খান কবির প্রমুখ।
উল্লেখ্য, প্রতিবছরের ন্যায় এবারও বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত বাংলাদেশেও বিশ্ব পর্যটন দিবস-২০১৭ পালন করা হচ্ছে। এ বছরের মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে “ Sustainable Tourism-a Tool for Development” অর্থাৎ “টেকসই পর্যটন- উন্নয়নের মাধ্যম”।