বাংলাদেশে হিজড়ার সংখ্যা প্রায় ১০ হাজার

7

যুগবার্তা ডেস্কঃ সমাজসেবা অধিদফতরের জরিপমতে, বাংলাদেশে হিজড়ার সংখ্যা প্রায় ১০ হাজার জন।আজ এক তথ্য বিবরণীতে জানিয়েছেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়।

বিবরণীতে বলেন, আবহমানকাল থেকে সমাজে বৈষম্যমূলক আচরণের শিকার এ জনগোষ্ঠীর পারিবারিক, আর্থসামাজিক উন্নয়নসহ, শিক্ষাব্যবস্থা, বাসস্থান, স্বাস্থ্যগত উন্নয়ন এবং সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে সমাজের মূলস্রোতধারায় সামিল করতে “হিজড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন কর্মসূচি” নামক একটি উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

এ কর্মসূচির লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হচ্ছে-স্কুলগামী হিজড়াশিক্ষার্থীদের শিক্ষিত করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ৪ স্তরে (জনপ্রতি মাসিক প্রাথমিক ৭০০, মাধ্যমিক ৮০০, উচ্চ মাধ্যমিক ১০০০ এবং উচ্চতর ১২০০ টাকা হারে) উপবৃত্তি প্রদান, ৫০ বছর বা তদুর্ধ বয়সের অক্ষম ও অসচ্ছল হিজড়াদের বিশেষভাতা জনপ্রতি মাসিক ৬০০ প্রদান, বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মক্ষম হিজড়া জনগোষ্ঠীর দক্ষতাবৃদ্ধি ও আয়বর্ধনমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করে তাদের সমাজের মূলস্রোতধারায় আনয়ন করা এবং প্রশিক্ষণোত্তর আর্থিক সহায়তা ১০,০০০/-( দশ হাজার) টাকা প্রদান করা। ১৮ বছর বয়সোর্ধ্ব কর্মক্ষম হিজড়া ব্যক্তিদের ট্রেডভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় এবং প্রশিক্ষণার্থীদের প্রশিক্ষণোত্তর অফেরতযোগ্য আর্থিকসহায়তা প্রদান করা হয়।

২০১২-২০১৩ অর্থবছর থেকে পাইলট কর্মসূচি হিসেবে দেশের ঢাকা, চট্টগ্রাম, দিনাজপুর, পটুয়াখালী, খুলনা ,বগুড়া এবং সিলেট এই ৭টি এলাকায় কর্মসূচি শুরু হয়। ২০১২-১৩ অর্থবছরে অর্থবরাদ্দ ছিল ৭২,১৭,০০০ (বাহাত্তর লক্ষ সতের হাজার) টাকা। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে নতুন ১৪ টি জেলাসহ মোট ২১টি জেলায় এ কর্মসূচি বাস্তবায়িত হয়েছে। জেলাগুলো হচ্ছে গাজীপুর, নেত্রকোণা, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, চাঁদপুর, লক্ষীপুর, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া, কুমিল্লা, জয়পুরহাট, নওগাঁ, সিরাজগঞ্জ, ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া ও পিরোজপুর। এ অর্থবছরে (২০১৩-১৪) মোট বরাদ্দ ছিল ৪,০৭,৩১,৬০০ (চারকোটি সাতলক্ষ একত্রিশহাজার ছয়শত টাকা)।

অন্যদিকে ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরের এ কর্মসূচির জন্য বরাদ্দ ছিল ৪,৫৮,৭২,০০০.০০ (চারকোটি আটান্নলক্ষ বাহাত্তরহাজার) টাকা। তবে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে এ কর্মসূচিকে ৬৪টি জেলাতেই সম্প্রসারিত করা হয়েছিল। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৬৪ জেলায় বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ দাঁড়িয়েছিল ১১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা। তবে ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ হচ্ছে ৫,৫৬,০০,০০০/- (পাঁচকোটি ছাপ্পান্নলক্ষ) ) টাকা। ২০১২-১৩ থেকে ২০১৯-২০ অর্থবছরে শিক্ষাভাতার ক্ষেত্রে লক্ষ্যভুক্ত উপকারভোগীর সংখ্যা হচ্ছে সর্বমোট-৮,২৯২ জন, হিজড়াভাতাভোগী ১৪,৬৫১ জন, প্রশিক্ষণভাতাভোগীর সংখ্যা ১,১০,৭০০ জন এবং ২০১৮-১৯ অর্থবছর পর্যন্ত প্রশিক্ষণোত্তর ভাতাভোগী হিজড়া ছিল ৭৪,৩০০ জন।