বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং বাংলাদেশের অভাবনীয় সাফল্য সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দিতে হবে–পররাষ্ট্রমন্ত্রী

16

যুগবার্তা ডেস্কঃ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, চারিত্রিক মহিমা, সংগ্রাম, মানুষের জন্য অবদান এবং বাংলাদেশের অভাবনীয় সাফল্য আমরা পৃথিবীর সব দেশকে জানাতে চাই। ১ বছর আমরা জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী পালন করবো। তাই এ বছর আমাদের জন্য অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।
তিনি শনিবার মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় পরিষদের দ্বিতীয় সম্মিলন ও জ্ঞানালোক পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

ড. মোমেন বলেন, বাংলাদেশের দারিদ্র্য সীমা গত দশ বছরে ৪২ থেকে ২০ শতাংশে নেমে গেছে। বাংলাদেশ এক সময় ‘তলাবিহীন ঝুঁড়ি’ হিসেবে চিহ্নিত থাকলেও এখন পৃথিবীর মধ্যে অন্যতম সম্ভাবনাময় দেশ। সম্প্রতি এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ৪৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের জিডিপি’র প্রবৃদ্ধির হার সর্বোচ্চ। উন্নতির সাথে সাথে এদেশের দারিদ্র অনেক নেমে এসেছে। আগামী পাঁচ বছরে দারিদ্র আরো ৫% কমাতে চাই।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের জিডিপিতে পর্যটন শিল্পের অবদান অনেক কম। এখাতে অবদান বাড়ানোর জন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, শুধু অর্থনৈতিকভাবে নয় সাংস্কৃতিক অর্জনও আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

ড. মোমেন বলেন, পৃথিবীতে সংঘাতের কারণ হিংসা, বিদ্বেষ ও অজ্ঞতা। হিংসা বিদ্বেষ কমাতে পারলে সংঘাত দূর হবে এবং পৃথিবীতে শান্তি বিরাজ করবে।

অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের সভাপতি ড. নূহ-উল- আলম লেনিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন চলচ্চিত্র পরিচালক ও নাট্যজন নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু, নৃত্যশিল্পী লায়লা হাসান। অনুষ্ঠানে প্রধানবক্তা হিসেবে বক্তৃতা করেন এটর্নি জেনারেল এডভোকেট মাহবুবে আলম।

এসময় বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘ ও ইত্তেফাকের সম্পাদক তাসমিমা হোসেনকে জ্ঞানালোক পুরস্কার প্রদান করা হয়। বাংলাদেশ বৌদ্ধ কৃষ্টি প্রচার সংঘের মহাসংঘনায়ক শুদ্ধানন্দ মহাথেরো এ সংঘের পুরস্কারের ক্রেস্ট ও ১ লক্ষ টাকার চেক গ্রহণ করেন।