ফিরছেন নিখোঁজরা মুখ খুলছেন না

যুগবার্তা ডেস্কঃ গত পাঁচ মাসে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে ১৩ জন রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হন। এদের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে ১০ জন ফিরেও এসেছেন। এতে স্বস্তি ফিরেছে ওইসব পরিবারে। কিন্তু এখনও ফেরেননি কানাডার ম্যাকগিল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী ইশরাক আহমেদ, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও এবিএন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাদাত আহমেদ এবং সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান। তাদের নিয়ে পরিবারের সদস্যরা উত্কণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন।

অপরদিকে, নিখোঁজ থাকার পর যারা ফিরেছেন তাদের কাছেও মিলছে না কোনো তথ্য। অপরহরণকারীদের ব্যাপারে তেমনভাবে মুখও খুলছেন না তারা। ফলে কারা তাদের অপহরণ করেছিল, নিখোঁজের দিনগুলোতে তারা কোথায় ছিলেন, কেনইবা আটকের পর আবার ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে— এমন সব প্রশ্নের কোনো উত্তর মিলছে না। সব কিছুই থাকছে রহস্যেঘেরা।

ফিরে আসা ব্যক্তিদের কাছে তেমন কোনো তথ্য না মেলার কারণ হিসেবে মানবাধিকার কর্মী এবং অপরাধ বিজ্ঞানীরা বলছেন, তারা আটককালীন সময়ে ভীতিকর অবস্থায় ছিলেন। এ কারণে তারা আর মুখ খুলছেন না বা তাদের মুখ খুলতে নিষেধ করা হয়েছে। এসব গুম বা অপহরণ প্রতিরোধে বিশেষজ্ঞরা সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য সবাইকে পরামর্শ দিয়েছেন।

বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, ‘কোনো ফৌজদারি অপরাধী তাদের তুলে নিয়ে গেলে দাবি-দাওয়ার বিষয় থাকত। এখানে কোনো ধরনের মুক্তিপণ বা অপরাধীদের চাহিদা পূরণ করা ছাড়াই তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। অর্থাত্ এখানে কোনো লেনদেন হয়নি। একজন অপরাধী কাউকে তুলে নিয়ে গিয়ে কিছু প্রাপ্তি ছাড়াই দীর্ঘ সময় রেখে আবার ফেরত দিচ্ছে, সেটা হতে পারে না। আবার রাষ্ট্রীয় বাহিনী তাদের খুঁজে পাচ্ছে না, সেটা কিভাবে সম্ভব। এখন তো রাষ্ট্রীয় বাহিনীকেই আমাদের সন্দেহ হচ্ছে। রাষ্ট্রকেই এখন প্রমাণ করতে হবে তারা এর সঙ্গে সম্পৃক্ত না। না হলে মানুষের মনের মধ্যে একটা সন্দেহ থেকেই যাবে। যেটা রাষ্ট্রের জন্য ভালো হবে না।’

ফিরে আসা ব্যক্তিরা তাদের কোথায় রাখা হয়েছিল, কীভাবে ওই স্থানে নিয়ে যাওয়া হলো এবং কীভাবে আবার ফিরে আসা হলো তার একটা অস্পষ্ট চিত্র দিচ্ছেন। নির্দিষ্ট করে কিছু বলছেন না। এ কারণে ওইসব স্থান ঢাকার বাইরে নাকি ভেতরে তাও পরিষ্কার নয়। ফিরে আসাদের দেওয়া কিছু তথ্যে বেশ মিল খুঁজে পাওয়া যায়। অধিকাংশই জানিয়েছেন, তাদের তুলে নেওয়ার পর কোনো একটি প্রকোষ্ঠে রাখা হয়েছিল। সেখানে দেওয়া হয়েছিল প্রস্তুতকৃত খাদ্য। কারও চোখ বেঁধে আবার কারও হাত বেঁধে রাখা হতো। এদের কারও কাছে চাঁদা চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই চাঁদা নেওয়ার জন্য কোনো তত্পরতা দেখাননি অপহরণকারীরা। এমনকি নিখোঁজ ব্যক্তির স্বজনরা অপহরণকারীদের কাছ থেকে কোনো ফোনও পাননি।

ফিরে আসা ব্যক্তিরা আরো জানিয়েছেন, অপহরণকারীরা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়, পেশা নিয়ে প্রশ্ন করত। অন্যান্য প্রশ্নও করা হতো। প্রত্যেককে একটি বদ্ধ করে তালা দিয়ে রাখা হতো। প্রতিদিন খাবারও দেওয়া হতো তাদের। কিন্তু কারা সেই ব্যক্তি তা দেখতে পায়নি ফিরে আসাদের কেউই। ফিরে আসা এসব ব্যক্তিকে কেন অপহরণ করা হয়েছিল আর আটকে রেখে কী জানতে চাওয়া হয়েছিল তাও অজানা। এ ছাড়াও এসব ব্যক্তিকে আটক রাখার সময়ে কোনো ধরনের শারীরিক অত্যাচার ও মানসিক নির্যাতন করা হয়নি। তাহলে কেন তাদের নিয়ে যাওয়া হয়েছিল আর কেনইবা এতোদিন আটকে রাখা হলো— সেসব প্রশ্ন স্বাভাবিকভাবেই এখন সামনে চলে আসে।

মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সাবেক নির্বাহী পরিচালক ও মানবাধিকার কর্মী নূর খান লিটন বলেন, ‘আমরা মানবাধিকার কর্মীরা বারবার বলছি, যারা নিয়ে যাচ্ছে আবার দুই-তিন মাস পর ফিরিয়ে দিচ্ছে তারা যদি রাষ্ট্রীয় বাহিনী না হয় তাহলে রাষ্ট্রীয় বাহিনীর চেয়ে শক্তিশালী কেউ। এরা সুরক্ষিতভাবে রাখছে, আবার ফেরত দিচ্ছে। যারা ফিরে এসেছে তাদের একজনকেও তো রাষ্ট্রীয় বাহিনীর তত্পরতার কারণে ফিরিয়ে দেয়নি। যারা নিয়েছে তারা স্বেচ্ছায় ফিরিয়ে দিয়েছে। ফলে যারা রাষ্ট্রকে চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে তাদের ব্যাপারে রাষ্ট্র কেন চুপ? রাষ্ট্রকেই এ ব্যাপারে জবাব দিতে হবে।’

গত পাঁচ মাসে নিখোঁজের মধ্যে যারা ফিরে এসেছেন তারা হলেন— ব্যাংক এশিয়ার এভিপি শামীম আহমেদ, বাংলাদেশ জনতা পার্টির (বিজেপি) সভাপতি মিঠুন চৌধুরী ও দলটির কেন্দ্রীয় নেতা অসিত ঘোষ অসিত, বেলারুশের অনারারি কনস্যুলার অনিরুদ্ধ কুমার রায়, দক্ষিণ বনশ্রীর নকিয়া-সিমেন্সের সাবেক প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান আসাদ, অ্যাভেনটিস-স্যানোফির ফার্মাসিস্ট জামাল রহমান, শাজাহানপুরের ফল ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন, গুলশানের প্রকাশক তানভীর ইয়াসিন করিম, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষক ড. মুবাশ্বীর সিজার ও সাংবাদিক উত্পল দাস।-ইত্তেফাক