পৌর নির্বাচনে জোটবদ্ধ হয়েই লড়বে ২০ দল

যুগবার্তা ডেস্কঃ জোটবদ্ধভাবেই পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নিতে যাচ্ছে ২০ দল। বৃহস্পতিবার রাতে জোটের শরিকদের সঙ্গে নির্বাচন প্রসঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, জোটগতভাবে পৌরসভার মেয়র প্রার্থী নির্ধারণ করা হবে। এতে বিএনপির প্রার্থীরা অংশ নেবে দলীয় প্রতীকে। জোট ওই প্রার্থীকেই সমর্থন জানাবে।
বৈঠক সূত্র জানায়, আলোচনাসাপেক্ষে জামায়াতকে কিছু আসনে ছাড় দেয়া হতে পারে। তবে জামায়াত নেতাদের কোনো আসনে ধানের শীষ প্রতীক দেয়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ এতে বিএনপি আরও বেশি সমালোচনার মধ্যে পড়বে। যেসব পৌরসভা জামায়াতকে ছেড়ে দেয়া হবে তাতে তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী দেবে। ওইসব পৌরসভার কোথাও বিএনপি প্রার্থী দিলেও কৌশলে তারা জামায়াত প্রার্থীকে জোটগতভাবে সমর্থন জানাবে। ওই প্রার্থীর পক্ষেই জোটের শরীক দলগুলো ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবে বলে সমঝোতা হয়েছে।
এদিকে পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে অনেকটা তাড়াহুড়া করেই দলের প্রার্থী ঠিক করতে হচ্ছে বিএনপিকে। কারা দলের মনোনয়ন পাচ্ছেন সেটা আজ শুক্রবার থেকে প্রার্থীদের জানিয়ে দেয়া হবে। বৃহস্পতিবারই যশোর, ঝিনাইদহ ও কুষ্টিয়া জেলার পৌরসভাগুলো ছাড়া বাকি সবগুলোর প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়েছে। আজকের মধ্যেই বাকি প্রার্থীদের নাম চূড়ান্ত করে ফেলা হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
সূত্র জানায়, প্রার্থী বাছাইসহ নির্বাচনের সার্বিক কাজ তদারকি করতে ১৯টি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী প্রস্তুতি শুরু হলেও নতুন করে তফসিল ঘোষণার দাবি জানাতে পারে দলটি। ২ জানুয়ারি নতুন ৫০ লাখ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পাবে। এরপর তফসিল ঘোষণা করতে নির্বাচন কমিশনের কাছে দাবি জানাতে পারে বিএনপি।
সূত্র জানায়, সপ্তাহ দুয়েক আগে থেকেই একটি খসড়া প্রার্থী তালিকা তৈরি করে বিএনপি। দলের সাংগঠনিক দায়িত্বে থাকা যুগ্ম-মহাসচিব মো. শাহজাহান কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা এবং স্থানীয় পর্যায়ের নেতাদের পরামর্শ নিয়ে এ তালিকা তৈরি করা হয়। বুধবার রাতে সেই তালিকা নিয়ে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে কথাও বলেন সংশ্লিষ্টরা।
বুধবার নির্বাচনে যাওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়ার পর বৃহস্পতিবার দিনভর গুলশান কার্যালয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা পৌরসভায় দলের মনোনীত প্রার্থী কে হবে তা ঠিক করতে কাজ করেছেন। পূর্ব থেকে কিছুটা প্র¯‘তি থাকলেও গতকাল তাড়াহুড়া করেই প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়। রাতে ২০ দলীয় জোটের বৈঠকের পর এ বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকে বসেন।
জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। জনগণের শক্তিতে শক্তিমান হয়ে রাজনীতি করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চায়। তিনি বলেন, আমরা নির্বাচন করতে চাই বলেই অতিমাত্রায় গ্রেফতার বেড়ে গেছে। নির্বাচনের পরিবেশ অক্ষুণ্ণ রাখতে তিনি গ্রেফতার ও নেতাকর্মীদের হয়রানি বন্ধের দাবি জানান।
নোমান আরও বলেন, প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় খুব কম। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর সার্বিক কার্যক্রম শেষ করা কঠিন। এ জন্য নতুন করে তফসিল ঘোষণার দাবি তুলব আমরা।

সূত্র জানায়, মেয়র পদের চেয়ে কাউন্সিলর পদে জামায়াতকে বেশি ছাড় দিতে পারে বিএনপি। কারণ কাউন্সিলর প্রার্থী হতে দলীয় সমর্থনের প্রয়োজন নেই। যে কেউ ই”ছা করলেই প্রার্থী হতে পারবেন।
জানতে চাইলে এলডিপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম বলেন, পৌরসভা নির্বাচনে যাবে বলে তাদের দল ইতিমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে। সেটা একক না জোটগতভাবে তা জোটের বৈঠকেই চূড়ান্ত হবে। এলডিপি যেহেতু নিবন্ধিত দল তাই তারা তাদের প্রতীকেই (ছাতা) নির্বাচন করবে। দলের সম্ভাব্য প্রার্থী চূড়ান্ত করতে আজ দলের বৈঠক ডাকা হয়েছে। আমাদের সময়.কম