পৃথিবীতে যাদের মানবতা নেই, তাদের সভ্যতাও নেই।

17

গোলাম সরোয়ারঃ সৌদি সরকার বাংলাদেশের পাসপোর্টধারী ৪২ হাজার রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে আনতে অনবরত চাপ দিয়ে যাচ্ছে। গত কয়েক বছরে বহু চাপের পর এবার বাংলাদেশকে একাধিক চিঠি দিয়ে বিষয়টি সমাধান করতে বলেছে সৌদি আরব।

তাদের উক্ত চিঠির বদৌলতে আমাদের আবারো ভাবতে হচ্ছে, পৃথিবী চলে ম্যাটেরিয়াল নিয়মে, আবেগে কিংবা বিশ্বাসে নয়। আমরা মনে রাখি, বিশ্বাস কখনো মানুষকে মহান করতে পারেনা, যদি না কর্ম তাদের মহান করে।

পৃথিবীর ম্যাটেরিয়াল নিয়ম অনুসারে আমরা যে হিসাব পাই, তাতে দেখতে পাই;– সৌদি আরবের আয়তন প্রায় সাড়ে একুশ লক্ষ বর্গকিলোমিটার। আয়তনে দেশটি বাংলাদেশের সাড়ে পনের গুণ থেকে বেশি।

দেশটির লোকসংখ্যা হলো প্রায় তিন কোটি ত্রিশ লাখ। তার ভিতরে প্রায় এক কোটি তাদের সেবক হিসেবে কর্মরত অভিবাসী। মানে দুই কোটি লোকের জন্যে খেদমতদার আছে প্রায় এক কোটি।

অথচ এরাই বিয়াল্লিশ হাজার মুসলিম রোহিঙ্গাকে রাখতে রাজি নয়, যারা আবার মুসলিম হওয়ার অপরাধে বার্মা থেকে বিতাড়িত। আমাদেরকে কিন্তু বারবার হাইকোর্ট দেখানো হয় ইসলামের রাজধানী !

পৃথিবীতে মোট মানুষ আছে প্রায় সাতশ ত্রিশ কোটি আর মুসলিম আছে প্রায় একশ সাতান্ন কোটি। তারমানে পৃথিববীর সমস্ত মুসলিমকে সৌদি আরবে জায়গা দিলেও তাদের জনসংখ্যার ঘনত্ব হবে প্রতি বর্গকিলোমিটারে প্রায় ৭৩০ জন, যা বাংলাদেশের বর্তমান জনঘনত্বের চেয়ে বহু কম হবে, প্রায় অর্ধেক। কারণ বাংলাদেশে বর্তমানে প্রতি বর্গকিলোমিটারে মানুষ বসবাস করে প্রায় বারশ চব্বিশ জন।

তারমানে দাঁড়ালো পৃথিবীর সব মুসলিমকে সৌদি আরব জায়গা দিলেও তাদের জনসংখ্যার ঘনত্ব যা হবে, বাংলাদেশের বর্তমান জনসংখ্যার ঘনত্ব তার প্রায় দ্বিগুণ। সেই বাংলাদেশকে ‘সেরের উপর সোয়া সের হিসেবে’ আঠার কোটি মানুষে দেশে আরো এক মিলিয়ন রোহিঙ্গাকে নিতে হয়েছে, কিন্তু সৌদি আরব বিয়াল্লিশ হাজার নিতে রাজি না।

ধর্ম শুধু কল্পকাহিনী বলে দিলেই হবেনা, কষ্টিপাথরে যাচাই করে নিতে হবে,–অন্তত আগামি প্রজন্ম তাই করবে। আমাদের দেশের যারা কথায় কথায় ‘মুসলিম উম্মাহ’ বলে ধর্ম দেখায়, তাদের এগুলো বিবেচনার সময় এসেছে।

পৃথিবীতে মানবতা থেকে বড় কোন স্টোরি পূর্বেও ছিলোনা, ভবিষ্যতেও থাকবেনা। আমরা দেখতে পাই, আরবে মূলত মানবতাও নেই, ধর্মও নেই।-(সূত্র: মনির জামানের ওয়াল থেকে)