পিরোজপুরে ঘুর্ণিঝড় বুলবুলের তান্ডবে দেড়লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ

12

হাসান মামুন,পিরোজপুরঃ ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তান্ডবে এবং বাতাসের গতিবেগ বেশি থাকায় জেলার বিভিনś স্থানের বাড়িঘর, সড়ক, মহাসড়কের উপর গাছ পালা উপড়ে পড়ে। এতে পিরোজপুরে দের লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। পাশাপাশি আড়াই হাজার কাঁচাঘর ভেঙ্গে পড়েছে। এছাড়া কৃষি জমি, মাছের ঘের, নার্সারী ও গাছপালার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, জেলার ৭টি উপজেলায় ২২৮টি ঘুর্ণীঝড় আশ্রয়কেন্দ্রে ৯০ হাজার ৬১৬ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছে। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ২০ লাখ টাকার শুকনো খাবার ও ২শ মেক্ট্রিকটন চাল বিতরণ করা হয়েছে।
ঝড়ে জেলার নাজিরপুর উপজেলায় ঘর ভেঙ্গে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে ও আহত হয়েছে ২১৭ জন। এছাড়া জেলার ১০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের আংশিক ক্ষতি সহ ৫৪ কি.মি. সড়ক, ১৬৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ৯৪৩টি নলকূপ, ১২শ ৫০টি স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা, ১০ স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ৫৭ লক্ষ টাকার গবাদি পশু, ১১ কোটি টাকার খামার, ১শ ২৩ কোটি টাকার কৃষি ও অকৃষি জমি ও ধান, শীতকালীন সবজি ও অন্যান্য ফসলের ব্যপক ক্ষতি হয়েছে। গাছ উপড়ে পড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন ব্যাপক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। গত ৩৬ ঘন্টার অধিক সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ ও মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধ আছে।
ভান্ডরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পৌর প্রশাসক মো. নাজমুল আলম জানান, ঘুর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে উপজেলা গৌরীপুর ইউনিয়নের ˆপকখালী গ্রামের মো. মশিউর রহমানের ৪ বছরের ছেলে মো. জাওয়াদ নামের এক শিশু মারা যায়।
ক্ষতিগ্রস্থরা জানান, রোববার সকাল ৯টায় ঝড়োবাতাশ ও বৃষ্টিপাতের তীব্রতা বৃদ্ধি পায়। বিকেল পর্যন্ত ঝড়ের এ তীব্রতা চলে। বুলবুলের এ তীব্র তান্ডবে মঠবাড়িয়া উপজেলার কচুবাড়িয়া ও খেতাছিড়া গ্রামের বেড়িবাধ ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়। গত শনিবার রাত থেকেই বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রয়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ থাকায় গতকাল রোববার দুপুর থেকে মোবাইল নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পরে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধি দপ্তরের উপ পরিচালক আবু হেনা মো. জাফর জানান, জেলায় আমন ধানের ফুলের কিছু ক্ষতি হয়েছে। এর ফলে ধানের উৎপাদন কম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া বর্ষাকালীন ও রবি শস্য ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ও রবি শস্যের ফলন দেড়িতে হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন জানান, জেলায় দেড়লক্ষ মানুষ ঘূণিঝড়ের কবলে ক্ষতির শিকার হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য ক্ষতিগ্রস্থদের ত্রাণ ও পুনর্বাসনের অধিনে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থদেরও সহায়তা করা হবে।
এদিকে সাইক্লোন সেল্টারে আশ্রয় নেয়া মানুষদের নিরাপত্তার জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া ছাড়াও আশ্রয়কেন্দ্র গুলিতে খাবারের জন্য এ এলাকার সংসদ সদস্য গৃহয়াণ ও গনপূর্ত মন্ত্রী শ.ম রেজাউল করীম এমপি ব্যাক্তিগত উদ্যোগে শুকনা খাবার, বিশুদ্ধ পানি ,মোমবাতি,গ্যাসলাইট প্রদান করেন এবং স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গসহ বিভিন্ন মাধ্যমে এসব এলাকান মানুষের সার্বক্ষনিক খোঁজ খবর নিয়ে থাকেন।