নৌপরিবহন শুধু অভ্যন্তরীণ খাতেই নয় আন্তর্জাতিক খাতেও এর যোগাযোগ বাড়ছে–নৌপ্রতিমন্ত্রী

যুগবার্তা ডেস্কঃ নৌপরিবহনের ক্ষেত্রে বর্তমান সরকার বিগত ১০ বছরে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করেছে। ফলে এ খাতের বিস্তৃতি দিন দিন বাড়ছে। নৌপরিবহন শুধু অভ্যন্তরীণ খাতেই নয় আন্তর্জাতিক খাতেও এর যোগাযোগ বাড়ছে। গত ২৯ মার্চ ঢাকা- কলকাতা-ঢাকা রুটে ক্রুজ সার্ভিস চালু হয়েছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এমপি আজ সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে সালাম শিপিং লাইন্স লিমিটেড-এর বিলাসবহুল যাত্রীবাহী জাহাজ ‘এম.ভি. মানামী’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

সালাম শিপিং লাইন্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোঃ আবদুস সালামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব মোঃ আবদুস সামাদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ শাহে আলম মুরাদ, নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব ভোলা নাথ দে ও বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মাহবুব-উল ইসলাম।

নৌপথে যাত্রী সেবার মান আরও উন্নত করার লক্ষ্য নিয়ে ঢাকা-বরিশাল-ঢাকা নৌপথে চলাচলের জন্য আজ উদ্বোধন করা হয়েছে বিলাসবহুল যাত্রীবাহী জাহাজ ‘এম.ভি. মানামী’। ঢাকা-বরিশাল-ঢাকা নৌপথে রাত ৯:৫৫ মিনিটে ‘এম.ভি. মানামী’ জাহাজটি চলাচল করবে। এতে রয়েছে বিলাস বহুল ভিআইপি ডুপ্লেক্স ও ডাবল ৪টি কেবিন, সেমি ভিআইপি ৩টি, ফ্যামেলী ৩টি কেবিন। এছাড়া ডাবল ও সিঙ্গেল কেবিন রয়েছে ১৪৪ টি।

যাত্রীদের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে নির্মিত ‘এম.ভি. মানামী’র বৈশিষ্ট্য হলো – এটি দেশের প্রথম ডাবল বোটম/দ্বিস্তর বিশিষ্ট যাত্রীবাহী জাহাজ; জাহাজের নকশাটি বুয়েট কর্তৃক অনুমোদিত; নৌ-পরিবহন অধিদপ্তর থেকে অনুমতি প্রাপ্ত নকশা মেনে জাহাজটি নির্মাণ করা হয়েছে; জাহাজে আধুনিক যন্ত্রপাতি- ইকো সাউন্ডার, রাডার, জি.পি.আর.এস, ফোয়াক লাইট, হাইড্রলিক গিয়ার সহ সকল উন্নতমানের যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হয়েছে; ৬টি জরুরি লাইফ বোট এবং যাত্রীদের নিরাপদ যাত্রার কথা বিবেচনায় রেখে “বিশেষ যাত্রী ইনসুরেন্স” এর ব্যবস্থা রাখা হবে; সিকিউরিটি রুম থেকে জাহাজটি সি.সি. ক্যামেরা দ্বারা সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করা হবে; ডেকসহ সম্পূর্ণ লঞ্চে ওয়াইফাই জোন করা হয়েছে; মনোরম পরিবেশে ডাইনিং ও কফি হাউস; অনলাইন টিকিটিং সুবিধা; যাত্রীদের জন্য বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা (রাত ১০ টা হতে রাত ১২ টা পর্যন্ত) প্রদান করা হবে; দেশের সম্পদের সঠিক ব্যবহার ও আইন যথাযথ মেনে চলার উপর ডকুমেন্টারি/সচেতনতামূলক নির্দেশনা প্রদর্শন করা হবে এবং যাত্রীদের জরুরি প্রয়োজনে টাকা লেনদেনের জন্য একটি এ.টি.এম বুথ এর ব্যবস্থা করা হবে।