‘নো ভ্যাট নো এডুকেশন’

65

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চাপিয়ে দেয়া ৭.৫% ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে গড়ে ওঠা ভ্যাটবিরোধী আন্দোলনের ২য় বর্ষপূর্তিতে বৃহস্পতিবার ‘NO VAT ON EDUCATION’ এক গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে।
উক্ত গোলটেবিল বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ভ্যাটবিরোধী আন্দোলনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন নেতৃবৃন্দের মধ্যে জ্যোর্তিময় চক্রবর্তী, মশিউর সজীব, শাহাদাত হোসেন, কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ, শাহরিয়ার রাহাত, এস.আর আদনান, সৈয়দ আবু ওয়াহিদ অনিক, জয় বনিক, তাহসিন মল্লিক। এছাড়াও ‘NO VAT ON EDUCATION’ প্লাটফরম থেকে বিভিন্ন সময় নেতৃত্ব দিয়েছেন আরেফিন মাহমুদুল হাসান ধ্রুব, ফারহান হাবিব, ফজলে রাব্বী খান তাজ, ফারুক আহমেদ সহ অনেকে।
গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা বলেন, ভ্যাটবিরাধী আন্দোলন ছিল শিক্ষার বানিজ্যিকীকরণের বিরুদ্ধে অন্যতম সফল গণ ছাত্রআন্দোলন। ভ্যাটবিরোধী আন্দোলনের যাত্রাপথে প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠনসমূহ এবং সাধারণ ছাত্রদের ব্যাপক অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে ‘NO VAT ON EDUCATION’ প্লাটফরম গড়ে তোলা হয়। ৩ মাসের অধিক সময় ধরে চলা ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে রাষ্ট্রপতির কার্যালয় অভিমুখে পদযাত্রাসহ বিভিন্ন কর্মসূচী পালিত হয়। দীর্ঘসময় ধরে ধারাবাহিক কর্মসূচী গ্রহণের কারণে ঢাকাসহ সারাদেশে ব্যাপক দাবিভিত্তিক ছাত্র ঐক্য গড়ে তোলা সম্ভব হয়। ইস্ট-ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের রাস্তা অবরোধ করে ছাত্র জমায়েতে গুলি চালানো হলে পরদিন ‘NO VAT ON EDUCATION’ এর নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে ঢাকার বিভিন্ন এলাকার রাস্তা অবরোধ করে ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। পরদিন ১১ সেপ্টেম্বর প্রেসকনফারেন্স করে সন্ধ্যাবেলায় ধানমন্ডি এলাকায় মশাল মিছিলের মাধ্যমে ১২-১৪ টানা তিনদিন ছাত্রধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়। ১২ সেপ্টেম্বর ‘NO VAT ON EDUCATION’ এর নেতৃবৃন্দের উদ্যোগে ধানমন্ডি-বনানীতে ধর্মঘটের সমর্থনে মিছিল করা হয়। ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে আন্দোলন ব্যাপক স্বতঃস্ফুর্ত রূপ ধারণ করে এবং ১৪ সেপ্টেম্বর সরকার দাবি মেনে নিলে প্রেস কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়।
আজকের গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা আরো বলেন, ভ্যাটবিরোধী আন্দোলন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সহ ছাত্র আন্দোলনের ইতিহাসে মাইলফলক রচনা করেছে। ‘NO VAT ON EDUCATION’ নামটি একটি প্ল্যাটফরমকে ছাড়িয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণের বিরুদ্ধে ছাত্র অধিকারের প্রতীকে পরিণত হয়েছে।
ভ্যাট প্রত্যাহার হলেও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পণ্যায়নের ধারা চলমান রয়েছে। নেতৃবৃন্দ ভ্যাট আন্দোলনের দ্বিতীয় দাবি দেশের মেহনতি মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থার ভিত্তিতে অভিন্ন টিউশন ফি নীতিমালা বাস্তবায়নের দাবিতে জনমত গড়ে তোলার আহ্বান জানান।