নারী দিবসে ওয়ার্কার্স পার্টি ও সিপিবির সংহতি

যুগবার্তা ডেস্কঃ আগমাীকাল আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে ওয়ার্কার্স পার্টি ও কমিউনিষ্ট পার্টি পৃথক বিবৃতিততে সংহতি প্রকাশ করেছে।
বুধবার বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন এমপি ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড ফজলে হোসেন বাদশা এমপি এক বিবৃতিতে ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবসের প্রতি সংহতি প্রকাশ করেন। বিবৃতিতে বলা হয় বিশ্বব্যাপী শ্রমজীবি নারীসহ সকল গণতান্ত্রিক নারী আন্দোলনের মধ্য দিয়ে নারীর সামাজিক সুরক্ষা, মর্যাদা ও শোষণমুক্তির অর্জিত অধিকারগুলি আজ বিঘ্নিত এবং খন্ডিত হচ্ছে।
পুঁজিবাদের নয়াউদারনৈতিক শোষণ ও ধর্মীয় মৌলবাদের যৌথ আক্রমণ আজ সমাজে নারীর সকল অধিকার মর্যাদা সংকুচিত করে ফেলছে। নারী নির্যাতন, নিগ্রহ, যৌন হয়রানি, ধর্ষণ, খুন আজ ˆনমিত্তিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। বিবৃতিতে ওয়ার্কার্স পার্টির ২১ দফা কর্মসূচিতে গৃহীত নারী অধিকার, ক্ষমতায়ন ও লিঙ্গ সমতার দাবী আদায়ের সংগ্রামে এগিয়ে আসার জন্য সকল শ্রমজীবি ও গণতান্ত্রিক নারী সমাজের প্রতি আহবান রাখা হয়।

বিবৃতিতে জাতীয় সংসদসহ সকল জনপ্রতিনিধিত্বকারী প্রতিষ্ঠানে নারীদের এক তৃতীয়াংশ আসন সংরক্ষণ ও এ সকল আসনকে সরাসরি নির্বাচনের ব্যবস্থা চালু করার দাবী পুনর্ব্যক্ত করা হয়।

অনুরুপ এক বার্তায় বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)’র সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড মো. শাহ আলম বলেন বাংলাদেশসহ সারা দুনিয়ার নারী সমাজের প্রতি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জ্ঞাপন করেছেন।

নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে বলেছেন, মানুষের প্রকৃত অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক মুক্তির আন্দোলনের অপরিহার্য অংশ হচ্ছে নারীমুক্তি আন্দোলন। নারীর পূর্ণ স্বাধীনতা ব্যতীত মানবমুক্তির সংগ্রাম সফল হবে না। নারীমুক্তির বিষয়কে অগ্রাহ্য করে সমাজের সামগ্রিক প্রগতি সম্ভব নয়। ফলে সভ্যতার বিনির্মাণে, সমাজপ্রগতির অপরিহার্য অংশ হিসেবেই নারীমুক্তি আন্দোলনকে অগ্রসর করতে হবে। সমাজের ˆবপ্লবিক পরিবর্তন তথা সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ছাড়া নারী মুক্তি অর্জন সম্ভব নয়। নারীমুক্তির পথ ধরেই মানবমুক্তির পথে অগ্রসর হতে হবে।