নওগাঁয় আদিবাসী পল্লিতে অগ্নিসংযোগে নিন্দা জানিয়েছে সিপিবি

নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার আলমপুর ইউনিয়নের কাগজকুটা গ্রামে আদিবাসী পল্লিতে গত ২৪ মার্চ গভীর রাতে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা মোশারফ হোসেন মিস্টারের নেতৃত্বে দুর্বৃত্তদের হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)।

সিপিবির সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক কমরেড মোহাম্মদ শাহ আলম আজ এক বিবৃতিতে বলেছেন, নওগাঁর এই আদিবাসী পল্লিতে প্রায় ৪০টি ভূমিহীন আদিবাসী ও বাঙালি পরিবার বসবাস করছেন। তাঁদেরকে উচ্ছেদের জন্য পরিকল্পিতভাবে আওয়ামী লীগের দুর্বৃত্তরা হাসুয়া, কুড়াল, তীর-ধনুক নিয়ে রাতের আঁধারে নৃশংসভাবে হামলা চালায়। ঘুমন্ত মানুষের ওপর হামলার পর দুর্বৃত্তরা পেট্রোল দিয়ে ঘর-বাড়ি পুড়িয়ে দেয়। থাল-বাসন, ধান, চাল, নগদ টাকাসহ সহায়-সম্বল সব লুট করে নিয়ে যায়। অসহায়, আতংকিত মানুষকে এখন খোলা আকাশের নিচে থাকতে হচ্ছে। উপরন্তু পুলিশ দুর্বৃত্তদের পক্ষ নিয়ে ২ জন আদিবাসীকে গ্রেপ্তার করেছে।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, আদিবাসী, গরিব-নিম্নবিত্ত মানুষের ওপর টার্গেট করে একের পর এক হামলা হচ্ছে। সরকার প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে হামলাকারীদের পক্ষে অবস্থান নিচ্ছে। তাই কোনো হামলারই বিচার হচ্ছে না। জনগণের প্রতিরোধ-আন্দোলনের মাধ্যমেই সব হামলার সমুচিত জবাব দেয়া হবে।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, সিপিবিসহ বাম গণতান্ত্রিক জোট সাধ্যমতো ত্রাণসামগ্রী নিয়ে আদিবাসী পলিøর অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। অবিলম্বে সরকারি উদ্যোগে তাঁদের মধ্যে প্রয়োজনীয় ত্রাণ সরবরাহ করতে হবে এবং ক্ষতিপূরণ প্রদান ও পুনর্বাসনের জন্য বসতবাড়ি নির্মাণের ব্যবস্থা করতে হবে।

সিপিবির নেতৃবৃন্দ হামলাকারী আওয়ামী দুর্বৃত্তদের অবিলম্বে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। একইসঙ্গে হয়রানিমূলকভাবে গ্রেপ্তারকৃত ২জন আদিবাসীর অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।