নওগাঁর মান্দায় স্বাস্থ্যকর্মীদের কর্মবিরতি পালন; ব্যাহত স্বাস্থ্য সেবা

13

নওগাঁ প্রতিনিধি : নিয়োগবিধি সংশোধন করে বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে দেশব্যাপী স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের লাগাতার কর্মবিরতি পালন কর্মসূচী শুরু হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় নওগাঁর মান্দাতেও চলছে এই কর্মবিরতি।

গত ২৬ নভেম্বর থেকে লাগাতার কর্মবিরতি পালন করছে মান্দা উপজেলার স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা। গত বৃহস্পতিবার থেকে এ কর্মবিরতি পালনকালে মান্দা উপজেলার নারী ও শিশু টিকা নিতে পারেনি বলে জানা গেছে।

এছাড়া স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসা রোগীরাও নানা ধরনের ভোগান্তির সম্মুখীন হয়েছেন। এতে করে ব্যাহত হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা। অতিদ্রুত এর একটা বিহিত হওয়া দরকার। আর এজন্য অতিদ্রুত এর একটা সমাধান চেয়েছেন ভূক্তভোগীরা।

‘ভ্যাকসিন হিরো সম্মান, স্বাস্থ্য সহকারীর অবদান’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে গত ২৬ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার) থেকে সারা দিন ব্যাপি বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন মান্দা উপজেলা শাখার স্বাস্থ্য সহকারীরা তাদের দাবি সম্বলিত ব্যানার, পেস্টুন নিয়ে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করেন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন মান্দা উপজেলা শাখার সভাপতি সভাপতি হারেজ আলী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম,এসোসিয়েশনের স্বাস্থ্য পরিদর্শক (ইনচার্জ) মুজিবুর রহমান, স্বাস্থ্য সহকারী শাহ আলম হাজারী ও জয়ন্তী রানী সরকার প্রমূখ।

সভাপতি হারেজ আলী তার বক্তৃতায় বলেন, বর্তমানে স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারী সবাই ১৬তম গ্রেডে বেতন পেয়ে থাকেন। নিয়োগবিধি সংশোধন করে তাদের বেতন যথাক্রমে ১১, ১২ ও ১৩তম গ্রেডে উন্নীত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘১৯৯৮ সালের ১৬ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের চার দফা দাবি বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়েছিলেন। গত ২০ বছরেও এই দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ায় আমরা বাধ্য হয়ে আন্দোলনে নেমেছি।’ দাবি পূরণে প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে। এতে কর্মবিরতিতে মান্দা উপজেলায় কর্মরত স্বাস্থ্য পরিদর্শক ৪জন, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ৯ জন এবং স্বাস্থ্য সহকারী ৫০ জন সহ সর্বমোট ৬৩ জন স্বাস্থ্যকর্মী অংশ নেন।