ধীরে ধীরে সভ্যতার দিকে এগুচ্ছেন

মফিজুর রহমান কবিরঃ এবার সৌদি নারীরা পেল ড্রাইভিং অধিকার। মিডিয়া জগতে তুমুল হৈচৈ পড়ে গেছে। সৌদি নারীরাসহ সারা বিশ্ব বেজায় খুশি। সৌদি নারীরা খুশিতে “I am my own guardian” এবং “Saudi women can drive” হ্যাসট্যাগ দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া গরম করে তুলছে। কারণ এবার তারা একটু বেশি অধিকার পাচ্ছে যা তাদের কাছে স্বপ্নের মতো। কেননা এবার আর তাদের ড্রাইভিং শিক্ষা বা গাড়ি চালনার জন্য কোন পুরুষ অভিভাবকের অনুমতি পত্র লাগবেনা। এই তো সেদিন সৌদি নারীদের ড্রাইভিং শেখার অদম্য ইচ্ছার একটা খবর পড়েছিলাম। এক সৌদি নারী তার প্রানপ্রিয় স্বামীকে সারপ্রাইজ দেওয়ার জন্য গোপনে ড্রাইভিং শিখে, সোজা গাড়ি চালিয়ে তার স্বামীর অফিসে গিয়ে হাজির। কিন্তু সেই নারীটি কল্পনাও করেননি যে সেখানে তার জন্য আরো অনেক বড় সারপ্রাইজ অপেক্ষা করছিল। তিনি যখন হাসিমুখে তার স্বামীকে জানালেন যে তিনি নিজেই সম্পূর্ণ একা গাড়ি চালিয়ে তাকে সারপ্রাইজ দিতে এসেছেন, তখন স্বামী মহোদয় উপস্থিত সকলের সামনে দাঁড়িয়ে তাকে তালাক দিয়ে দিলেন।

যাই হোক এবার অন্তত তারা ধীরে ধীরে সভ্যতার দিকে এগুচ্ছেন। বিশ্বের অন্য প্রান্তের মেয়েরা যখন চাঁদে যাচ্ছে, মঙ্গলগ্রহ অভিযানের সঙ্গি হচ্ছে, মাসের পর মাস মহাকাশে কাটাচ্ছে, মহাকাশ স্টেশন থেকে সরাসরি ফেইসবুকে লাইভ দিচ্ছে ঠিক তখন সৌদি নারীরা ড্রাইভিংয়ের অনুমতি পাচ্ছে। তাদের পিছিয়ে পড়ার মাত্রাটা সহজেই অনুমেয়। তবুও সবাই খুশি। কচ্ছপ গতিতে হলেও তারা এগুচ্ছে। অন্ধকার থেকে আলোয় মাথা তুলে বের হচ্ছে। এমন যুগান্তকারী পদক্ষেপের জন্য সৌদি সরকারকে ধন্যবাদ। আধুনিক সৌদির ইতিহাসে তারা স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।-লেখকঃ সাংবাদিক ও সৌদী প্রবাসী