দেশে সংস্কৃতির নামে অপসংস্কৃতি আর রাজনীতির নামে অপরাজনীতি চলছে–জি এম কাদের

যুগবার্তা ডেস্কঃ জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেছেন, সমাজ সেবা ও রাজনীতিতে অবক্ষয় শুরু হয়েছে। দেশে সংস্কৃতির নামে অপসংস্কৃতি আর রাজনীতির নামে অপরাজনীতি চলছে। গোলাম মোহাম্মদ কাদের আরো বলেন, কিছু মানুষ রাজনীতিকে ব্যবসায় পরিনত করেছে। রাজনীতিতে যারা যত বেশি টাকা লগ্নি করতে পারে, তারাই বেশি লাভবান হচ্ছে। শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবাও এখন ব্যবসায় পরিনত হয়েছে। অথচ এমনটি হওয়া উচিত নয়। আমরা রাজনীতিতে গুনগত পরিবর্তন আনতে চাই। বলেন, জাতীয় পার্টিকে সাধারন মানুষের ভালোবাসার পার্টিতে পরিনত করা হবে। জাতীয় পার্টি সব সময় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে। তিনি বলেন শুধু রাজনীতিবিদদের সামলোচনা করলে চলবেনা, যেগ্য নেতৃত্ব নির্বাচনে সাধারন মানুষকে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে হবে।
বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেন, জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে যাদের ত্যাগ ও অবদান আছে তাদেরই মূল্যায়ন করা হবে। বলেন, নেতা-কর্মীদের শুধু কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেই দায়িত্ব শেষ হবেনা। পার্টির নেতৃত্ব নির্বাচন এবং পার্টির কর্মকৌশল নির্ধারনেও ভূমিকার রাখতে হবে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের।
আজ ইঞ্জিনিয়ারিং ইনষ্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় যুব সংসহতি আয়োজিত সংবর্ধনা ও ইফতার মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন।
জাতীয় যুব সংহতির সভাপতি আলমগীর সিকদার লোটন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় এবং যুব সংহতির নেতা এডভোকেট মোঃ জুলফিকার হোসেন বোঁচাগঞ্জ এবং মোঃ জহিরুল ইসলাম ভূইয়া তাড়াইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় যুব সংহতি এই সংবর্ধনার আয়োজন করে।
জাতীয় যুব সংহতি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি ও আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক লায়ন আহাদ ইউ চৌধুরী শাহিন এর সভাপতিত্বে ও জাতীয় যুব সংহতি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব মাহমুদ আলম এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় পার্টির মহাসচিব ও বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি বলেন, বিএনপি তাদের কৃত-কর্মের ফল ভোগ করছে। বলেন জেলখানায় পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে ইফতারে একটি খেজুর খেতে দেয়নি। অথচ তারা এখন খালেদা জিয়ার ইফতার নিয়ে নানা অভিযোগ তুলছেন। বলেন বিভিন্ন সিটি কর্পোরেশনের মেয়রদের মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়া হচ্ছে, অথচ সব চেয়ে বেশি ভোট পেয়ে নির্বাচিত রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়রকে এখনো মন্ত্রীর পদমর্যাদা দেয়া হয়নি। মসিউর রহমান রাঙ্গা দ্রুত রংপুর সিটি মেয়রকে মন্ত্রীর পদ মর্যাদা দিতে সরকারের প্রতি আহবান জানান।
বক্তৃতা করেন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপিকা মাসুদা এম রশীদ চৌধুরী এমপি, এড. মোঃ রেজাউল ইসলাম ভুইয়া, উপদেষ্টা ক্বারী হাবিবুল্লা বেলালী, জাতীয় যুব সংহতি সাধারণ সম্পাদক ফকরুল আহসান শাহজাদা, জাতীয় যুব সংহতি কেন্দ্রীয় প্রাদেশিক সাংগঠনিক সম্পাদক উত্তর বঙ্গ প্রদেশ (রংপুর) এ্যাড. মোঃ জুলফিকার হোসেন, তাড়াইল উপজেলা চেয়ারম্যান ও জাতীয় যুব সংহতির আহ্বায়ক মোঃ জহিরুল ইসলাম ভুইয়া (শাহিন) এর পক্ষে তার বোন উম্মে হানি।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এম.এ মুনিম চৌধুরী বাবু সাবেক এমপি, দফতর সম্পাদক সুলতান মাহমুদ, যুগ্ম-সাংগঠনিক সম্পাদক শারমিন পারভীন লিজা, যুগ্ম-দফতর সম্পাদক এম.এ রাজ্জাক খান, ক্বারী ইছারুহুল্লা আসিফ, মোঃ রেজাউল করিম, কেন্দ্রীয় নেতা- এনাম জয়নাল আবেদীন, নাজমুল খান, মোঃ সোলায়মান সামি, লোকমান ভুইয়া রাজু, মোতাহার হোসেন চৌধুরী রাশেদ, এড. বায়েজীদ, জাতীয় যুব সংহতির কেন্দ্রীয় নেতা- হেলাল উদ্দিন, শাহজাহান কবির, মিয়া আলমগীর, মোঃ দ্বীন ইসলাম শেখ, মঞ্জুরুল হক, আবু সাদেক বাদল, মির্জা ইকবাল কবির, মিয়া আলমগীর, নাছির উদ্দিন সিদ্দিকী, জি.এম শহীদ, ওমর আলী খান মান্নাফ, আহাদ হাজারী, আরিফুল ইসলাম রুবেল, মোহাম্মদ উল্লাহ, আলমগীর হোসেন, চন্দন বড়ুয়া, নুর মোহাম্মদ সুজন, আঃ কাদির জুয়েল প্রমুখ।